বুড়িগঙ্গায় লঞ্চডুবির ঘটনায় আরও দু’জনের মরদেহ উদ্ধার

0

বুড়িগঙ্গায় লঞ্চডুবির ঘটনায় আরও দু’জনের মরদেহ উদ্ধার করা হয়েছে। এ নিয়ে মোট ৩৪ জনের মরদেহ উদ্ধার করা হলো। মর্নিং বার্ড লঞ্চটিকে নারায়গঞ্জের ডকইয়ার্ড তীরে নেয়া হয়েছে। এ ঘটনায় ময়ুর-২ লঞ্চের মালিকসহ ১৩ জনের নামে হত্যা মামলা দায়ের করেছে নৌ-পুলিশ। ময়ুর-২ কে জব্দ করে রুট পারমিট বাতিল করা হয়েছে বলে জানান বিআইডব্লিউটিএ’র চেয়ারম্যান কমোডর গোলাম সাদেক।

দ্বিতীয় দিনের মতো সকাল ১০টায় বুড়িগঙ্গায় ডুবে যাওয়া লঞ্চ মনিং বার্ডের উদ্ধার কাজ শুরু করে ফায়ার সার্ভিসের ডুবুরি দল। উদ্ধাকারী জাহাজ প্রত্যয় পোস্তগোলা ব্রিজে আটকে পড়ায় সাধারণ পদ্ধতিতে বেলুনে বাতাস দিয়ে টেনে নারায়নগঞ্জের ডক ইয়ার্ডের তীরে আনা হয় লঞ্চটি ।

অভিযানের একপর্যায়ে দুপুর পৌনে ১ টার দিকে আরও একজনের মরদেহ উদ্ধার করা হয়। এর পর আরো একটি লাশ পানিতে ভেসে উঠে।

এ ঘটনায় দক্ষিণ কেরানীগঞ্জ থানায় মামলা দায়ের করেছে নৌ-পুলিশ। দায়িত্বে অবহেলার অভিযোগে ময়ূর-২ লঞ্চের মালিক মোসাদ্দেক হামিদ ফুয়াদ, মাস্টার আবুল বাশার, জাকির হোসেন, স্টাফ শিপন হাওলাদার, শাকিল হোসেন হৃদয়, সুকানি নাসির মৃধাসহ ১৩ জনকে আসামি করা হয়। নৌ-পুলিশের ঢাকা জোনের পুলিশ সুপার খন্দকার ফরিদুল ইসলাম জানান, আসামীদের গ্রেফতারে অভিযান অব্যাহত আছে।

উদ্ধার তৎপরতা নিয়ে কথা বলেন, ফায়ার সার্ভিসের পরিচালক অপারেশন।

পরে উদ্ধার অভিযানসহ সার্ভিক বিষয়ে আনুষ্ঠানিকভাবে কথা বলেন, বিআইডব্লিউটিএর চেয়ারম্যান, গোলাম সাদেক। এ ঘটনায় ময়ুর-২ কে জব্দ করে রুট পারমিট বাতিল করা হয়েছে।

এসময় লঞ্চমালিকদের অবহেলার কথা উল্লেখ করে তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়ার কথাও জানান গোলাম সাদেক।

গত সোমবার মুন্সিগঞ্জ কাঠপট্টি থেকে প্রায় ৫০ জন যাত্রী নিয়ে মর্নিং বার্ড নামের লঞ্চটি ঢাকায় আসছিল। সকাল সাড়ে ৯টার দিকে ফরাশগঞ্জ ঘাট সংলগ্ন কুমিল্লা ডক এরিয়ায় ময়ূর-২ লঞ্চ পেছনের দিকে ধাক্কা দিলে মর্নিং বার্ড লঞ্চটি ডুবে যায়।

শেয়ার করুন।

উত্তর দিন