কোরবানির ঈদকে সামনে রেখে গরু মোটাতাজাকরণে ব্যস্ত খামারিরা

0

কোরবানির ঈদকে সামনে রেখে গরু মোটাতাজাকরণে ব্যস্ত সময় পাড় করছে চাঁদপুর, ঝিনাইদহ ও ফেনীর খামারিরা। ন্যায্য দাম পেতে সীমান্ত পথে ভারতীয় গরু আনার উপর নিষেধাজ্ঞা আরোপের দাবি তাদের। আর, গরু মোটাতাজাকরণে রাসায়নিক ওষুধের ব্যবহার বন্ধে মনিটরিং করা হচ্ছে বলে জানালেন জেলা প্রাণিসম্পদ কর্মকর্তা।

জেলা প্রাণিসম্পদ অফিসের হিসেবে, এ বছর চাঁদপুরের আট উপজেলায় দেড় হাজার খামারী এক লাখ ২০ হাজার গবাদী পশু মোটাতাজা করছে। দেশীয় পদ্ধতিতে, নিয়মিত খৈল, ভুসি, কাঁচা ঘাস, ভিটামিন ও ক্যালসিয়াম খাওয়াচ্ছে খামারীরা। তবে ভারতীয় গরু আমদানি ঠেকাতে সরকারের কাছে দাবি জানিয়েছেন তারা।

খামারীরা যাতে কোন নিষিদ্ধ ওষুধ ব্যবহার করতে না পারে, সেজন্য জেলা প্রাণিসম্পদ অফিস তৎপর রয়েছে বলে জানালেন এই কর্মকর্তা। ফেনীতেও প্রতিবারের মতো এবারো প্রাকৃতিক উপায়ে গরু মোটাতাজা করা হচ্ছে জেলার বিভিন্ন স্থানে গড়ে উঠা খামারে। কিন্তু ভারত থেকে চোরাই পথে গরু আসার শংকায় রয়েছেন খামারিরা। তবে, অবৈধ পথে গরু আমদানি রোধে সর্তক অবস্থানের কথা জানিয়েছে বিজিবি। কোরবানির ঈদকে সামনে রেখে ব্যস্ত সময় পার করছেন ঝিনাইদহের খামারিরাও। দেশীয় খাবারের মাধ্যমে গরু মোটাতাজা করছেন তারা।

খামারিদের পরামর্শসহ, ওষুধের দোকানে নিয়মিত মনিটরিং করা হচ্ছে বলে জানালেন জেলা প্রাণিসম্পদ কর্মকর্তা। প্রাণিসম্পদ অফিসের হিসেবে, এ বছর জেলার ছয় উপজেলায় পাঁচ লাখ ২৫ হাজার ৮৬১ টি গরু মোটাতাজাকরণ করা হচ্ছে।

শেয়ার করুন।