স্বাভাবিক হয়নি রাঙ্গামাটির সাথে সারাদেশের যোগাযোগ ব্যাবস্থা

0

এক সপ্তাহ হলেও এখনো স্বাভাবিক হয়নি রাঙ্গামাটির সাথে চট্টগ্রামসহ সারাদেশের সড়ক যোগাযোগ ব্যাবস্থা। রাঙ্গামাটি-চট্টগ্রাম সড়কের পাহাড়ী এলাকার অন্তত তিনটি পয়েন্টে বড় ধরণের পাহাড় ধস এখনো সংস্কার করা সম্ভব হয়নি। সংস্কার কাজে নিয়োজিত সেনাবাহিনীর প্রকৌশলীদের দাবি যত দ্রুত সম্ভব সড়ক যোগাযোগ স্বাভাবিক করতে চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছেন তারা। এদিকে পাহাড় ধ্বসের কারনে হালদা ও কর্নফূলীর পানিতে মাটির পরিমান বেড়ে গেছে তাই শোধনাগারগুলো থেকে চাহিদা অনুযায়ি পানি পাচ্ছে না চট্টগ্রাম ওয়াসা।

রাঙ্গামাটি-চট্টগ্রাম সড়কের ৩০ কিলোমিটার দৃষ্টিনন্দন পাহাড়ি সড়ক এখন ধ্বংসস্তুপ। পিচ ঢালা আঁকা-বাঁকা পথের অস্তিত্বই এখন খুজেঁ পাওয়া কঠিন । এই সড়কের অন্তত ৩৫ টি পয়েন্টে পাহাড় ধসের ঘটনা ঘটে। এ’কদিনে যার অধিকাংশ সংস্কার করা সম্ভব হলেও সাপছড়ি এলাকার তিনটি পয়েন্টে বড় ধরণের ধস সংস্কার এখন চ্যালেঞ্জ হয়ে দাঁড়িয়েছে।

পার্বত্য এই জেলাটির সঙ্গে সড়ক যোগাযোগ ব্যাবস্থা স্বাভাবিক করতে দিনরাত পরিশ্রম করেছেন সেনাবাহিনীর প্রকৌশলী দল। সড়ক যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন থাকায় দুর্ভোগে পড়েছেন সাধারণ মানুষ। জীবনের প্রয়োজনে ধসে পড়া পাহাড় ডিংগিয়ে সমতলে আসতে থাকা মানুষেরা জানান তাদের দুর্দশার কথা।

এদিকে পাহাড় ধস ও পাহাড়ি ঢলে কর্ণফূলী ও হালদা নদীর পানিতে কাদার পরিমান বেড়েছে অস্বাভাবিকভাবে। তাই শোধনাগারগুলো থেকে দৈনিক অন্তত ১০ কোটি লিটার পানি কম পাচ্ছে চট্টগ্রাম ওয়াসা।

এই বাস্তবতায় বন্ধ করে দেয়া ডিপ টিউবয়েলগুলো চালু করে সংকট মোকাবেলার চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে ওয়াসা।

শেয়ার করুন।

উত্তর দিন

thirteen + 14 =

Test