শ্রমিক আন্দোলনের পেছনে উসকানি দিয়ে নাশকতা সৃষ্টির চেষ্টা হচ্ছে কিনা, তা খতিয়ে দেখা হচ্ছে

0

নতুন মজুরি কাঠামোর বাস্তবায়নসহ বিভিন্ন দাবিতে এখনো চলছে পোশাক শ্রমিকদের বিক্ষোভ। শনিবারও রাজধানীর বিভিন্নস্থানে বিক্ষোভ আর সাভার, আশুলিয়ায় পুলিশের সাথে সংঘর্ষ হয়েছে। এতে পুলিশসহ ৩০ শ্রমিক আহত হয়েছে। এ ঘটনায় ২০টি কারখানায় ছুটি ঘোষনা করেছে কর্তৃপক্ষ। এদিকে, গাজীপুরে কয়েকটি গাড়ি ভাংচুর করেছে শ্রমিকরা। এসব ঘটনায় ডিএমপি কমিশনার আছাদুজ্জামান মিয়া জানান, শ্রমিক আন্দোলনের পেছনে উসকানি দিয়ে নাশকতা সৃষ্টির চেষ্টা হচ্ছে কিনা, তা খতিয়ে দেখা হচ্ছে।

শনিবার সকাল ১০টার পর মিরপুর-১৪, শেওড়াপাড়া, টোলারবাগ, বাংলা কলেজ ও টেকনিক্যাল এলাকায় অবস্থান নিয়ে আবারো বিক্ষোভ শুরু করে আশপাশর এলাকার পোশাক শ্রমিকরা। এতে প্রায় ৫ ঘণ্টা অবরুদ্ধ থাকে মিরপুরের বিভিন্ন সড়কে যান চলাচল। পরে পোশাক মালিক ও পুলিশের আশ্বাসে তারা সড়ক থেকে সরে যায়।

এদিকে রাজধানীর মিরপুরে শীতবস্ত্র বিতরণ শেষে সাংবাদিকদের সাথে কথা বলেন, ডিএমপি কমিশনার। এসময় তিনি হুশিয়ারি দেন, শ্রমিকদের আন্দোলন নিয়ে কারো বিরুদ্ধে স্বার্থ হাসিলের প্রমাণ পেলে আইনের আওতায় আনা হবে।

একই দাবিতে সাভার ও আশুলিয়ায় টানা ছয়দিন বিক্ষোভ করেছে পোশাক শ্রমিকরা। আন্দোলনরত শ্রমিকদের সাথে পুলিশের ব্যাপক সংঘর্ষ ও ধাওয়া পাল্টা ধাওয়াও হয়। পরে আন্দোলনরত শ্রমিকদের কাজে যোগ দেয়ার আহবান জানান দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণ প্রতিমন্ত্রী।

এছড়া টঙ্গী বিসিক এলাকায় বেশ কয়েকটি পোশাক কারখানার শ্রমিকরা বিক্ষোভ করেছে। তারা ঢাকা-ময়মনসিংহ মহাসড়ক অবরোধ করে বেশ কয়েকটি গাড়ি ভাঙচুরও করে।

শেয়ার করুন।

উত্তর দিন