বড় ধরনের ধাক্কা খেয়েছে শত শতঘরসহ অসংখ্য অবৈধ স্থাপনা নির্মাণকারী দালাল চক্র

0

শেখ হাসিনা তাঁতপল্লী স্থানান্তরের সিদ্ধান্তে বড় ধরনের ধাক্কা খেয়েছে শত শতঘরসহ অসংখ্য অবৈধ স্থাপনা নির্মাণকারী দালাল চক্র। এমন সিদ্ধান্তে সরকারের অন্তত ২ থেকে আড়াইশ’ কোটি টাকা লোপাটের হাত থেকে রক্ষা পেলো। এর ফলে প্রশাসনিক জটিলতাও নিরসন হবে বলে জানিয়েছেন কর্মকর্তারা। নতুন করে অবৈধ স্থাপনা রোধে নতুন প্রস্তাবিত এলাকায় আনসার মোতায়েনের সিদ্ধান্ত নিয়েছে প্রশাসন। দালাল চক্রের বিরুদ্ধে কঠোর হুঁশিয়ারি দিয়েছেন চিফ হুইপ নূর-ই-আলম চৌধুরী।

তাঁতপল্লী স্থানান্তর প্রকল্পে ১ হাজহার ৯১১ কোটি টাকা ব্যয় ধরে, মাদারীপুরের শিবচর উপজেলার কুতুবপুরে ৬০ একর ও শরীয়তপুরের জাজিরার নাওডোবায় ৪৮ একর জায়গা নির্ধারণ করা হয়। এখানে ৬ তলা ভবনসহ আবাসন সুবিধা, শিক্ষা প্রতিষ্ঠান, স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স ও কারখানা থাকার কথা রয়েছে। এছাড়া নির্মাণ হবে আন্তর্জাতিক মানের শোরুম ও প্রশিক্ষণ কেন্দ্র। সম্প্রতি জেলা প্রশাসন থেকে ভূমির মালিকদের দাগ ভিত্তিক তথ্য চাওয়া হয়। এমন তথ্য ছড়িয়ে পড়লে বাড়তি বিলের আশায় ওই জমির মালিক ও এক শ্রেণীর দাললচক্র ঘরসহ স্থাপনা নির্মাণ ও গাছ লাগানো শুরু করেছে।

প্রকল্পটি স্থানান্তর হয়ে এক জেলায় হওয়ায় প্রশাসনিক শৃঙ্খলা বজায় থাকবে বলে আশা অতিরিক্ত জেলা প্রশাসকের। আর জেলা প্রশাসক জানালেন, আনসার মোতায়েনের সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে। জমির মালিক ও শ্রেণীর দাললচক্রের বিরুদ্ধে কঠোর হুঁশিয়ারি দিয়েছেন চিফ হুইপ। প্রকল্পের সম্ভাব্য নতুন এলাকা দালাল ও অবৈধ স্থাপনামুক্ত রাখতে প্রশাসনকে কঠোর হওয়ার দাবি এলাকাবাসীর।

শেয়ার করুন।

উত্তর দিন