এ দফায় অনেকেই এখনো ভোটার হতে পারেননি

0

ভোটার তালিকা হালনাগাদ করতে বাড়ি বাড়ি যাওয়ার কথা ছিল। কিন্তু রাজশাহীতে তা করা হয়নি। ফলে এ দফায় অনেকেই এখনো ভোটার হতে পারেননি। এজন্য নির্বাচন কমিশনের গাফিলতিকেই দায়ী করছেন তারা। তবে কমিশন বলছে, এ নিয়ে হতাশ হওয়ার কারণ নেই। ছবি তোলা শুরু হলে বাদ পড়ারাও তালিকায় অন্তর্ভুক্ত হতে পারবেন। জিয়াউল গনি সেলিমের প্রতিবেদন। ছবি তুলেছেন আবু সাঈদ।

রাজশাহী উপ-শহরে শহীদ এএইচএম কামারুজ্জামান কলেজে চলছে নির্বাচন কমিশনের স্মার্ট কার্ড বিতরণ। কিন্তু এখানে অনেকেই ছুটে আসছেন ভিন্ন অভিযোগ নিয়ে। তারা বলছেন, বাড়ি বাড়ি গিয়ে ভোটার তালিকা হালনাগাদ করার কথা রাখেনি নির্বাচন কমিশন। তথ্য সংগ্রহকারীরা প্রতিটি বাড়িতে হাজির না হওয়ায় হালনাগাদ তালিকায় ওঠেনি নাম।

এমন অভিযোগে সুর মেলালেন স্থানীয় জনপ্রতিনিধিরাও। তারা বলছেন, নির্বাচন কমিশনের গাফিলতিতে অনেকেই পারেননি ভোটার হতে। এদিকে, ভোটার তালিকা হালনাগাদের কাজে নির্বাচন কমিশনের দুর্বল মনিটরিং ব্যবস্থাকে দায়ী করছেন রাজনৈতিক নেতারাও। তবে সব অভিযোগ অস্বীকার করে নির্বাচন কমিশন বলছে, এ ধরনের কোন লিখিত অভিযোগ তাদের কাছে আসেনি। যোগ্য কেউ বাদ পড়লে ছবি তোলার সময়ও ভোটার হওয়ার সুযোগ থাকবে।

রাজশাহী জেলায় এখন ভোটার সংখ্যা ১৯ লাখ দু’হাজার ৫৯ জন। গেল ২৫ জুলাই থেকে ৯ আগস্ট পর্যন্ত চলা ভোটার তালিকা হালনাগাদ কর্মসূচিতে নতুন ভোটার হতে যাচ্ছেন ৪১ হাজার ৬০ জন। নির্বাচন কমিশনের ধারণা ছিল এবার সাড়ে ৩ শতাংশ ভোটার বাড়বে। তবে বাস্তবে বেড়েছে দু’ শতাংশের কিছু বেশি।

শেয়ার করুন।