অনুষ্ঠিত হলো কারিশিল্পের অস্কারখ্যাত ব্রিটিশ কারি অ্যাওয়ার্ডের জমকালো আসর

0

এবারও লন্ডনের বাটারসি ইভ্যুলুশন হলে অনুষ্ঠিত হলো কারিশিল্পের অস্কারখ্যাত ব্রিটিশ কারি অ্যাওয়ার্ডের জমকালো আসর। ২০০৫ সালে ব্রিটিশ বাংলাদেশি ব্যবসায়ী এনাম আলি এমবিই-এর উদ্যোগে চালু হওয়া এবারের আসরটি ছিল ১৪তম। ক্ষমতাসীন কনজারভেটিভ পার্টির চেয়ারম্যান ব্র্যান্ডন লুইস, লিব ডেম লিডার স্যার ভিন্স ক্যাবল ও সাবেক ইউকিপ লিডার নাইজেল ফারাজ ছাড়াও আসরের রেড কার্পেটে দ্যুতি ছড়িয়েছেন জনপ্রিয় কমেডিয়ান অ্যাক্টিভিস্ট রাসেল।

ব্রিটিশ কারি অ্যাওয়ার্ড মানেই জমকালো সাংস্কৃতিক পরিবেশনা আর আভিজাত্যের ছোঁয়া। বরাবরের মতো এবারও তার ব্যতিক্রম হয়নি। রন্ধনশিল্পের নেপথ্য কারিগরদের পাশাপাশি ব্রিটিশ মূলধারার রাজনীতি, বিনোদন ও ক্রীড়াজগতের এক ঝাঁক তারকার উপস্থিতিতে মিলনমেলায় পরিণত হয় ব্রিটিশ কারি অ্যাওয়ার্ডের ১৪তম অস্কার আসর।

সন্ধ্যায় চোখ ধাঁধানো পার্ফরম্যান্সের মাধ্যমে শুরু হওয়া আসরে একে একে ঘোষণা করা হয় ১১টি ক্যাটাগরিতে ব্রিটিশ কারি অ্যাওয়ার্ডস বিজয়ীদের নাম। তবে এবার কিংবদন্তী সঙ্গীত শিল্পী আশা ভোসলেকে ‘দ্যা ইন্সপাইরেশন অ্যাওয়ার্ড’ এবং নন্দিত শেফ রেজাউল করিমকে প্রদান করা হয় ‘স্পেশাল রেকগ্নিশন অ্যাওয়ার্ড’।

বৃটেনের অর্থনীতিতে গুরুত্বপূর্ণ অবদান রাখা কারীশিল্প রক্ষায় সবাইকে ঐক্যবদ্ধ হয়ে কাজ করার আহ্বান জানান রাজনীতিবিদরা।

হস্পিটালিটি ক্যালেন্ডারের সবচেয়ে জমকালো ও সফল ইভেন্ট উপহার দিতে পেরে কমিউনিটির প্রতি কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করলেন ব্রিটিশ কারি অ্যাওয়ার্ডসের প্রতিষ্ঠাতা এনাম আলী এমবিই।

দু’শো বছর আগে ওয়েস্ট মিনিস্টারে হিন্দুস্থান কফি হাউসের মাধ্যমে যে ইন্ডাস্ট্রির গোড়াপত্তন, সেই কারি শিল্প দীর্ঘ পথ পাড়ি দিয়ে প্রতি বছর ব্রিটিশ অর্থনীতিতে ৫ বিলিয়ন পাউন্ড যোগান দিলেও এখন নানা সমস্যা জর্জরিত। তাই এই ইন্ড্রাস্টিকে বাঁচাতে সবাইকে ঐক্যবদ্ধ ভূমিকা রাখতে বললেন অনুষ্ঠানে আসা অতিথিরা।

শেয়ার করুন।

উত্তর দিন