পনের জুলাইয়ের পর থেকে হজের টাকা ফেরত দেয়া শুরু হবে

0

সৌদি সরকারের সিদ্ধান্ত অনুযায়ী এবার অন্য দেশ থেকে কেউ হজ করতে পারবেন না। সে হিসেবে বাংলাদেশ থেকে বেসরকারিভাবে নিবন্ধিত ৬১ হাজার ১৪২ জন ও সরকারিভাবে নিবন্ধিত ৩ হাজার ৪৫৭ জনের পবিত্র মক্কা নগরীতে আর হজে যাওয়া হচ্ছে না। এক্ষেত্রে নিবন্ধনকৃতরা ইচ্ছে করলে তাদের যাত্রা স্থায়ীভাবে বাতিল করে জমাকৃত টাকা আগামী ১৫ জুলাই থেকেই তুলতে পারবেন অথবা ওই টাকা না তুলে আগামী বছর অগ্রাধিকার ভিত্তিতে হজ্জ করতে পারবেন বলে জানান হাব সভাপতি।

করোনা প্রাদুর্ভাবের শুরু থেকেই হজ আয়োজন নিয়ে ছিলো অনিশ্চয়তা। তারপরও এ বছর বাংলাদেশ থেকে মোট ১ লাখ ৩৭ হাজার ১৯৮ জনকে হজে যাওয়ার নিশ্চয়তা দিয়ে গত ২৪ ফেব্রুয়ারি হজ প্যাকেজ ঘোষণা করে সরকার। তবে সৌদি হজ্জ মন্ত্রণালয়ের একটি সিদ্ধান্তে পাল্টে যায় সব। বলা হয়, করোনাভাইরাসের সংক্রমণ রোধে শুধুমাত্র সৌদি আরবে অবস্থানরতরাই এ মৌসুমে হজে অংশ নিতে পারবেন।

এরই মধ্যে বেসরকারিভাবে নিবন্ধিত ব্যক্তিদের কাছ থেকে বিমান ভাড়া , মুয়াল্লেম ও নিবন্ধন ফি বাবদ জনপ্রতি ১ লাখ ৮২ হাজার ৭৪২ টাকা হিসেবে মোট ১ হাজার ১১৭ কোটি ৩৩ লাখ টাকা নেয়া হয়। অন্যদিকে সরকারিভাবে নিবন্ধিত ৩ হাজার ৪৫৭ জনের কাছ থেকে প্যাকেজ অনুসারে পুরো টাকাই জমা নেয় ধর্ম মন্ত্রণালয়। হাব সভাপতি জানান হজ্জযাত্রীরা চাইলেই এ টাকা ফেরত নিতে পারবেন। এক্ষেত্রে সব এজেন্সীও টাকা ফেরত দিতে প্রস্তুত আছে বলে জানান তিনি।

সৌদি সরকারের এই সিদ্ধান্ত বাংলাদেশের ধর্মপ্রাণ মুসল্লিগণ আমলে নিয়ে ইতিবাচকভাবে প্রস্তুতি নেবেন ২০২১ সালের হজের জন্য-এমন প্রত্যাশাও করেন হাব সভাপতি।

শেয়ার করুন।

উত্তর দিন