স্কুলগুলোতে চিঠি পাঠিয়ে অবকাঠামো উন্নয়নের প্রলোভন দিয়ে হাতিয়ে নেয়া হচ্ছে বিপুল টাকা

0

ইউরোপীয় ইউনিয়নের সহায়তার নামে স্কুলগুলোতে চিঠি পাঠিয়ে অবকাঠামো উন্নয়নের প্রলোভন দিয়ে হাতিয়ে নেয়া হচ্ছে বিপুল টাকা। শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তা পরিচয়ে প্রতারকচক্র এ কাজ করছে। তাদের ফাঁদে পা দিয়ে প্রতারিত হচ্ছেন অনেকেই। বিশেষ করে গ্রামাঞ্চলের স্কুলগুলোকে টার্গেট করে হচ্ছে এমন প্রতারণা।

কয়েকদিন আগে হঠাৎই চিঠি আসে রাজশাহীর বিভিন্ন উপজেলার নামকরা স্কুলগুলোতে। শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের উপ-সচিব পরিচয়ে এম আশরাফুল আলম চৌধুরী স্বাক্ষরিত ওই চিঠি বলা হয়েছে ‘বাংলাদেশ শিক্ষা মন্ত্রণালয় ও ইউরোপিয়ান কমিশনের যৌথ উদ্যোগে প্রমোট বিদ্যালয় উন্নয়ন-দ্বিতীয় প্রকল্পের আওতায় বিদ্যালয়ের উন্নয়নে এককালীন অনুদান দেয়া হবে। এজন্য চিঠি পাওয়া মাত্রই মোবাইল ফোনে যোগাযোগের জন্যও বলা হয়। চিঠি পাওয়ার পর ফোন করা হলে এ চিঠির কথা স্বীকারও করেছেন ওই ব্যক্তি।

স্কুলগুলোতে মেয়েদের কমন রুম নির্মাণের জন্য ৬ লাখ ২০হাজার টাকা দেয়া হবে জানিয়ে এ টাকা ছাড় করাতে ৫০ হাজার টাকা ঘুষ দাবি করেন ওই ব্যক্তি। শুধু প্রমোট বা ইউরোপিয়ান কমিশন নয় বিভিন্ন সময়ে নানা লোভনীয় অনুদানের কথা বলে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান প্রধানদের কাছে বিকাশের মাধ্যমে হাতিয়ে নেয়া হচ্ছে মোটা অংকের টাকা।

শিক্ষা কর্মকর্তাও স্বীকার করেছেন, একশ্রেণীর প্রতারক স্কুল-কলেজে এ ধরনের প্রতারণা করছে বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। তবে এখন পর্যন্ত এদের বিরুদ্ধে কোনো আইনি ব্যবস্থা নেয়া হয়নি। তবে প্রতারকদের ফাঁদে পা না দিতে শিক্ষা অফিস থেকে সতর্ক করে স্কুলগুলোতে চিঠিও দেয়া হচ্ছে বলেও জানান কর্মকর্তারা।

শেয়ার করুন।

উত্তর দিন