সাবেক স্বরাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী বাবরের ৮ বছরের কারাদন্ড

0

জ্ঞাত আয় বহির্ভূত সম্পদ অর্জনের মামলায় সাবেক স্বরাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী লুৎফুজ্জামান বাবরকে আট বছরের কারাদণ্ড দিয়েছে আদালত। একই সঙ্গে জ্ঞাত আয়-বহির্ভূতভাবে অর্জিত- বাবরের ২৬ লাখ ৪২ হাজার টাকাসহ প্রাইম ব্যাংক গুলশান শাখায় তার জমাকৃত ৬ কোটি ৭৯ লাখ ৫০ হাজার টাকা রাষ্ট্রের অনুকূলে বাজেয়াপ্তের নির্দেশ দেয়া হয়েছে।

বিচার শুরুর এক যুগেরও বেশি সময় পর সাবেক স্বরাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী লুৎফুজ্জামান বাবরের বিরুদ্ধে রায় দিলো বিচারিক আদালত। এর আগে কারাগার থেকে বাবরকে আদালতে হাজির করে পুলিশ। ঢাকার বিশেষ জজ আদালত-৭ এর বিচারক মোহাম্মদ শহিদুল ইসলাম বেলা সাড়ে এগারোটার দিকে বাবরের উপস্থিতিতে রায় দেন। দুর্নীতির মামলার দুটি ধারায় সাবেক এই স্বরাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রীকে ৮ বছরের কারাদন্ড দেন আদালত।

রায়ে অসন্তোষ প্রকাশ করে এর বিরুদ্ধে উচ্চ আদালতে আপিলের কথা জানান বাবরের আইনজীবী।

অবৈধ সম্পদ অর্জন ও তথ্য গোপনের অভিযোগে সাবেক স্বরাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী লুৎফুজ্জামান বাবরের বিরুদ্ধে ২০০৮ সালের ১৩ জানুয়ারি রমনা থানায় মামলা করে দুর্নীতি দমন কমিশন। চার্জশিটে বাবরের বিরুদ্ধে ৭ কোটি ৫ লাখ ৯১ হাজার ৮৯৬ টাকার অবৈধ সম্পদ রাখার অভিযোগ আনা হয়। তিনি দুদকে ৬ কোটি ৭৭ লাখ ৩১ হাজার ৩১২ টাকার সম্পদের হিসাব দাখিল করেছিলেন।

২০০৭ সালের ২৮ মে যৌথ বাহিনীর হাতে আটক হন বাবর। এক দশক ধরেই তিনি কারাগারে রয়েছেন। একুশে আগস্ট গ্রেনেড হামলা মামলা ও দশ ট্রাক অস্ত্র মামলায় তাকে মৃত্যুদণ্ড দিয়েছে বিচারিক আদালত।

শেয়ার করুন।

উত্তর দিন