সাদুল্যাপুরে ঘাঘট নদের তীব্র ভাঙ্গনে অর্ধ শতাধিক ঘর-বাড়ি ও ফসলি জমি বিলীন হয়ে গেছে

0

গাইবান্ধার সাদুল্যাপুরে ঘাঘট নদের তীব্র ভাঙ্গনে অর্ধ শতাধিক ঘর-বাড়ি ও ফসলি জমি বিলীন হয়ে গেছে। এছাড়াও হুমকির মুখে পড়েছে আরো শতাধিক বসতবাড়ি ও আবাদি জমি। এদিকে, বর্ষা মৌসুমের পরপরই ঝিনাইদহের শৈলকুপায় গড়াই নদীর বেড়িবাঁধে ব্যাপক ভাঙ্গন দেখা দিয়েছে। মানচিত্র থেকে হারিয়ে যেতে বসেছে বড়ুলিয়া গ্রাম। স্বল্পমেয়াদী প্রতিরক্ষা ব্যবস্থা নেয়া হয়েছে। তবে স্থায়ী বেড়িবাঁধ দরকার বলে জানায়,পানি উন্নয়ন বোর্ড।

গাইবান্ধার সাদুল্যাপুরে ঘাঘট নদের ভাঙ্গনে গত এক সপ্তাহে অর্ধশতাধিক বাড়ি-ঘর ও কৃষি জমি বিলীন হয়ে গেছে। পঞ্চম দফা বন্যায় পর, ভাঙ্গন শুরু হয়েছে বলে জানায়, স্থানীয়রা। উপজেলার পাতিল্যাকুড়া, চক ডারিয়া, নলডাঙ্গা ইউনিয়নের কয়েকটি এলাকায় ভাঙ্গন চলছে। শিগশিগই ব্যবস্থা নেয়ার দাবি, এলাকাবাসীর।

ভাঙ্গন কবলিত এলাকা দেখে এসে ব্যবস্থা নেয়ার আশ্বাস দেন, স্থানীয় সংসদ সদস্য। ভাঙ্গন ঠেকাতে জরুরি ভিত্তিতে কাজ করছে, পানি উন্নয়ন বোর্ড। এদিকে, গড়াইয়ের ভাঙ্গনে ঝিনাইদহের সারুটিয়া ইউনিয়নের বড়ুলিয়া গ্রামের মানচিত্র বদলে যাচ্ছে। ভাঙ্গন কবলিতদের অভিযোগ, কোনো কার্যকর ব্যবস্থা নেয়া হচ্ছে না। প্রতিকার চেয়ে গ্রামবাসী ও মুক্তিযোদ্ধারা মানববন্ধনও করেছেন।

স্থায়ী প্রতিরক্ষা ব্যবস্থা না নিলে জিকে সেচ প্রকল্পও ক্ষতিগ্রস্থ হতে পারে বলে জানায়, পানি উন্নয়ন বোর্ড। ভাঙনের শিকার প্রায় ৫শ’ পরিবার এখন নিঃস্ব ভূমিহীন। ১৪শ’ বিঘা ফসলি জমি, শিক্ষা প্রতিষ্ঠান, মসজিদ, কবরস্থান, শ্বশ্মান ও
বাজার নদীগর্ভে বিলীন হয়ে গেছে।

শেয়ার করুন।

উত্তর দিন