শ্রমিক সঙ্কটে ধান কাটা নিয়ে বিপাকে পড়েছে যশোরের চাষিরা

0

শ্রমিক সঙ্কটে ধান কাটা নিয়ে বিপাকে পড়েছে যশোরের চাষিরা। এ ব্যাপারে কৃষি বিভাগের আশানুরুপ সহযোগিতা না পেয়ে হতাশ তারা। এদিকে, জামালপুরে ধানের ন্যায্য মূল্য নিয়ে শঙ্কায় রয়েছে চাষিরা। তবে কৃষি বিভাগ মনে করে, বোরো ধান বিক্রি করে বেশ লাভবান হবে কৃষক।

যশোরে ধান কাটায় স্থানীয়দের সঙ্গে পাশের জেলা সাতক্ষীরা থেকে উল্লেখযোগ্য সংখ্যক শ্রমিক যোগ দেয়। এবার লকডাউন থাকায় বাইরের শ্রমিক আসেনি বললেই চলে। শ্রমিকের মজুরিও গতবারের চেয়ে বেশি দিতে হচ্ছে।

গত বছর এক বিঘা জমির ধান কাটা ও মাড়াইয়ে পাঁচ থেকে ছ’হাজার টাকা খরচ হয়েছে। এবার আট/নয় হাজার টাকা লাগছে বলে জানায় চাষিরা।

এরকম পরিস্থিতিতে বিভিন্ন রাজনৈতিক সংগঠনের নেতা-কর্মীরা সহযোগিতা করছে।

হার্ভেস্টার মেশিন দিয়ে ধান কাটায় সহযোগিতা করা হচ্ছে বলে জানায়, জেলা কৃষি অধিদপ্তর।

জেলায় এক লাখ ৫৮ হাজার ৮৮০ হেক্টর জমিতে বোরো আবাদ হয়েছে। সম্প্রতি হিট শকে ৬০ হেক্টর জমির ধান নষ্ট হয়েছে বলে জানিয়েছে, কৃষি বিভাগ।

এদিকে, জামালপুরে প্রায় এক লাখ ৩০ হাজার হেক্টর জমিতে বোরো চাষ হয়েছে। সার-বীজ সহজে পেলেও, শ্রমিক মজুরি বেশি হওয়ায় ধার দেনা করেছে অনেকে। এখন ধানের ন্যায্যদাম নিয়ে শঙ্কায় রয়েছে কৃষক। মন প্রতি ১২/১৩’শ টাকা দাম নির্ধারণের দাবি জানিয়েছে তারা।

ফলন ভালো হওয়ায়, কৃষক দামও ভালো পাবে বলে আশা করছে, কৃষি বিভাগ।

বোরো ধানে লাভ পেলে অন্য ফসল চাষেও কৃষক উৎসাহ পাবে বলে মনে করে, সংশ্লিষ্টরা।

শেয়ার করুন।

উত্তর দিন