রাজশাহীর তানোরে গির্জায় আটকে কিশোরীকে নির্যাতনের অভিযোগ

0

রাজশাহীতে গির্জায় তিন দিন ধরে আটকে রেখে এক কিশোরীকে ধর্ষণের গুরুতর অভিযোগ উঠেছে খ্রিস্টান ধর্মীয় নেতার বিরুদ্ধে। গ্রাম্য শালিসে বিয়ের আগ পর্যন্ত ভরণ-পোষণের খরচ দেয়ার কথা বলে ধর্ষণের ঘটনা চাপা দেয়ারও চেষ্টা করা হয়। তবে, মামলার পর অভিযুক্ত ফাদার প্রদীপ গ্যাগরীকে গ্রেফতার করেছে র‌্যাব।

শনিবার ঘাস কাটতে গিয়ে নিখোঁজ হয় তানোর উপজেলার মন্ডুমালা মাহালীপাড়ার এক কিশোরী। তিনদিন পর তার সন্ধান মেলে স্থানীয় গির্জায়। পরে, এলাকাবাসী জানতে পারে, গির্জায় আটকে রেখে ধর্ষণ করা হয়েছে তাকে। এই গুরুতর অভিযোগ গির্জার ফাদার প্রদীপের বিরুদ্ধে। ঘটনা ধামাচাপা দিতে ঘরোয়া সালিশের পর ফাদার প্রদীপকে রাজশাহীতে বদলি করেন ধর্মীয় নেতারা। টাকা দিয়ে ধর্ষণের ঘটনা চাপা রাখতে পরিবারকে চাপ দেয়া হয় বলেও অভিযোগ উঠেছে। এসময় গির্জাতেই সিস্টারদের তত্ত্বাবধানে আটক রাখা হয় নির্যাতিত কিশোরীকে। পরে, পুলিশ গিয়ে উদ্ধার করে তাকে।

মঙ্গলবার রাতে ফাদার প্রদীপের বিরুদ্ধে মামলা করেন নির্যাতিত কিশোরীর ভাই। রাতেই রাজশাহী নগরীর নওদাপাড়া বিশপ হাউজ থেকে তাকে গ্রেফতার করে রেব। তবে, ঘটনাটিকে নিছক ভুল হিসেবেই দেখছেন গির্জার ধর্মীয় নেতারা।

এদিকে, মহিলা পরিষদের তথ্য অনুযায়ী, রাজশাহীতে গেল আগস্টে ১০টি ধর্ষণের ঘটনা ঘটেছে। রাজনৈতিক সদিচ্ছার অভাবে বিচারকাজ সহজ হচ্ছে না বলে মনে করেন, নারী নেত্রীরা।

শারীরিক পরীক্ষার জন্য নির্যাতিত ওই কিশোরীকে বুধবার সকালে রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের ওসিসিতে নেয়া হয়।

শেয়ার করুন।

উত্তর দিন