রাজবাড়ীর দৌলতদিয়া ফেরিঘাটে বেড়েছে যাত্রীদের চাপ

0

দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলের ২১টি জেলার প্রবেশদ্বার রাজবাড়ীর দৌলতদিয়া ফেরিঘাটে বেড়েছে যাত্রীদের চাপ। প্রতিদিন ঢাকায় কমর্স্থলে ফেরা লাখো কর্মজীবী মানুষ, জীবনের ঝুঁকি নিয়ে ফেরিতে পার হচ্ছেন পদ্মা নদী। যাত্রীরা স্বাস্থ্যবিধি না মানায় করোনা সংক্রমণের আশঙ্কা রয়েই যাচ্ছে। গণপরিবহন বন্ধ থাকায় হালকা যানবাহনে করে ঢাকায় পৌঁছাতে যাত্রীরা অতিরিক্ত টাকা খরচ এবং চরম ভোগান্তির শিকার হচ্ছেন।

রাজবাড়ীর দৌলতদিয়া ফেরি ঘাটে লঞ্চ চলাচল বন্ধ থাকায় চাপ পড়েছে ফেরির উপর। ফেরিতে গাদাগাদি করে পার হচ্ছেন কমর্স্থল ঢাকামুখী মানুষ। যাত্রী চলাচলে স্বাস্থ্যবিধি মানার কোনো উদ্যোগই নেই। বর্তমানে দৌলতদিয়ায় ৪টি ঘাট চালু রয়েছে। পদ্মায় পানি বাড়ায় ১ এবং ২ নম্বর ঘাট বিলীন হয়ে গেছে। দৌলতদিয়া-পাটুরিয়া নৌরুটে ১৪টি ফেরির মধ্যে ১০টি দিয়ে যানবাহন এবং যাত্রী পারাপার করা হচ্ছে। ঘাটে যাত্রীদের দুরভোগ ততটা না থাকলেও রয়েছে স্বাস্থ্য ঝুঁকি। যা যাত্রীরা নিজেরাও বুঝতে পারছেন। কিন্তু জীবন জীবীকার তাগিদে তাদের কর্মস্থলে ফিরতেই হচ্ছে বলে জানান তারা।

গণপরিবহন বন্ধ থাকায়, দেশের দক্ষিণ পশ্চিমাঞ্চলের বিভিন্ন জেলা থেকে ঘাটে আসতে যাত্রীদের নিদারুণ কষ্ট পোহাতে হয়। ঘাটে তৎপর আইন শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী। পুলিশ জানায়, যে কোনো পরিস্থিতিতে ঘাটের অবস্থা স্বাভাবিক রাখা হবে। দৌলতদিয়া ঘাট দিয়ে প্রতিদিন ফেরি যোগে সাড়ে ৩ হাজারের বেশি গাড়ি ও লাখো মানুষ পারাপার হচ্ছে। ঘাটের সার্বিক অবস্থা ভাল। ১০টি ফেরি চলছে জানিয়ে বিআইডব্লিউটিসির দৌলতদিয়া ঘাটের ব্যবস্থাপক জানান, যাত্রী ও যানবাহন বাড়লে প্রয়োজনে ফেরি বাড়ানো হবে। ঈদের ছুটি শেষে মানুষের ঢাকা ফেরার ক্ষেত্রে আরও দু’দিন বেশি চাপ থাকবে বলে জানান ঘাটের সংশ্লিষ্টরা।

শেয়ার করুন।

উত্তর দিন