বঙ্গবন্ধুর ৭ই মার্চের ভাষণকে পাঠ্য পুস্তকে প্রকাশ এবং শিক্ষার্থীদের কাছে তা তুলে ধরা উচিত

0

ঐতিহাসিক গুরুত্ব বিবেচনায় নিয়ে, বঙ্গবন্ধুর ৭ই মার্চের ভাষণকে পাঠ্য পুস্তকে প্রকাশ এবং শিক্ষার্থীদের কাছে তা তুলে ধরা উচিত বলে পর্যবেক্ষন দিয়েছে হাইকোর্ট। বিচারপতি এফ আর এম নাজমুল আহসান এবং বিচারপতি কে এম কামরুল কাদেরের হাইকোর্টের বেঞ্চ আজ এই পর্যবেক্ষণ দেন। একই সঙ্গে ৭ই মার্চের ভাষণের স্থানটির সংরক্ষণ এবং বঙ্গবন্ধুর আবক্ষ মূর্তি নির্মাণে সরকারের মহাপরিকল্পনা ১১ ফেব্রুয়ারির মধ্যে জানাতে নির্দেশ দেয় উচ্চ আদালত। মিজান আহমেদের প্রতিবেদন।

তর্জনী উচিয়ে মুক্তিকামী বাঙালীকে পথের দিশা দিয়েছিলেন বঙ্গবন্ধু। আর তাই ৭ই মার্চের ঐতিহাসিক এই ভাষণকে দেখা হয়, মহান মুক্তিযুদ্ধের প্রারম্ভিক ঘোষণা হিসেবে। তবে স্বাধীনতার ৪৮ বছর পেরিয়ে গেলো আজো সংরক্ষিত হয়নি জাতির পিতার ইতিহাস সৃষ্টিকারী সেই ভাষণের ঐতিহাসিক স্থানটি।বিষয়টির গুরুত্ব বিবেচনায় নিয়ে, এ বিষয়ে উচ্চ আদালতের নির্দেশনা চেয়ে হাইকোর্টে রিট করেন সুপ্রিমকোর্টের এক আইনজীবী।রিটের শুনানিতে উচ্চ আদালত জানায় ৭ই মার্চের ভাষণের গুরুত্ব নতুন প্রজন্মের কাছে তুলে ধরা উচিত।সোহরাওয়ার্দী উদ্যানের ঐতিহাসিক সেই স্থান সংরক্ষণ এবং বঙ্গবন্ধুর আবক্ষ মূর্তি নির্মাণে সরকারের নেয়া মহাপরিকল্পনা জানাবার নির্দেশ দেয় হাইকোর্ট।

মুজিব বর্ষেই ঐতিহাসিক সেই স্থানটির সংরক্ষণে প্রয়োজনীয় উদ্যোগ নেওয়া হবে, এমন প্রত্যাশাও জানান আইনজীবীরা।

 

শেয়ার করুন।

উত্তর দিন