প্রণোদনার আশায় করোনা পরীক্ষায় হুমড়ি খেয়ে পড়ছেন সরকারী চাকরিজীবীরা

0

রাজশাহীতে প্রণোদনার আশায় করোনা পরীক্ষায় হুমড়ি খেয়ে পড়ছেন সরকারী চাকরিজীবীরা। যেখানে উপসর্গ ছাড়া করোনা পরীক্ষাতে আগ্রহ নেই সাধারণ মানুষের, অথচ এক্ষেত্রে চিকিৎসক, রেব ও পুলিশসহ সরকারী চাকরিজীবীদের তালিকা দীর্ঘ। স্বাস্থ্য বিভাগ বলছে, অহেতুক টেস্টের লাগাম টেনে না ধরলে সরকারের বিপুল টাকা কেবল অপচয়ই হবে।

ফি নির্ধারণের পর সাধারণ মানুষের করোনা টেস্টের আগ্রহ কমেছে। উপসর্গ দেখা না দিলে নমুনা দিচ্ছেন না বেশির ভাগই। তবে উপসর্গ ছাড়াই নিছক সন্দেহ বা আতঙ্কের বশে নমুনা টেস্ট করাচ্ছেন চিকিৎসকরা। গেল কয়েকদিনে করোনা টেস্টের তালিকায় চিকিৎসকদের নামই এসেছে বেশি। প্রণোদনার আশায় সরকারি চাকরিজীবীরা অতি উৎসাহী হয়েও করোনা টেস্ট করাচ্ছেন বলে জানান সিভিল সার্জন।

চিকিৎসকদের পাশাপাশি করোনা টেস্টের তালিকায় পুলিশ ও রেব সদস্যদের নামের তালিকাও ছোট নয়। তবে মাঠপর্যায়ে দায়িত্ব পালন ও একসঙ্গে ব্যারাকে থাকার কারণে পুলিশ বেশি সংক্রমিত হচ্ছে বলে দাবি পুলিশ সুপারের।এদিকে, গড়ে প্রতিটি নমুনা টেস্টের জন্য সরকারের খরচ হয় প্রায় ৫ হাজার টাকা। সরকারী ল্যাবের কারণে অনেকেই করোনা টেস্টকে সুযোগ হিসেবে নিচ্ছে। তবে এর লাগাম টেনে ধরা উচিত বলে মনে করেন বিভাগীয় স্বাস্থ্য পরিচালক।

তবে এ বিষয়ে যোগাযোগ করা হলেও কোনো বক্তব্য দেননি রাজশাহী মেডিকেল কলেজের অধ্যক্ষ ডা. নওশাদ আলী। রাজশাহীতে কেবল সরকারী উদ্যোগে মেডিকেল কলেজ ও হাসপাতালের দুটি ল্যাবে করোনা টেস্ট করা হচ্ছে।

শেয়ার করুন।

উত্তর দিন