পূজা মন্ডপের সর্বোচ্চ নিরাপত্তায় কাজ করছে র‍্যাব সব ইউনিট

0

মহাষষ্ঠী পূজার মধ্য দিয়ে কঠোর নিরাপত্তায় শুরু হলো দুর্গাপূজার মূল আনুষ্ঠানিকতা। ঢাকের বোল, কাঁসর ঘণ্টা ও শাঁখের ধ্বনিতে মুখর হয়ে উঠেছে পূজামন্ডপ। করোনাভাইরাস মহামারির কারণে এবার কিছুটা সীমিত করা হয়েছে মন্ডপগুলোর আয়োজন। দেবী দুর্গার ভক্তকুল জাঁকজমকভাবে তার আগমন বার্তা জানাতে পারছে না। করোনার স্বাস্থ্যবিধি মেনে  উদযাপিত হচ্ছে এবারের দুর্গোৎসব। পূজা মন্ডপের সর্বোচ্চ নিরাপত্তায় কাজ করছে রেবের সব ইউনিট।

মহাষষ্ঠি পূজার মধ্যদিয়ে শুরু হল সনাতন ধর্মাবলম্বীদের শারদীয় দুর্গোৎসব। বোধন শেষে বেল্লুষষ্ঠিতে কলাবধু রুপে দেবী দুর্গা পূজার আসন গ্রহণ করবেন। তাকে সম্ভাষণ জানাতে সকালে ষষ্ঠি পুজায় ঢাক-ঢোল ও শাঁখের ধ্বনিতে মুখর ছিলো পুজা মন্ডপগুলো। বিল্লুষষ্ঠির মধ্যদিয়ে দেবী দুর্গা মন্দিরে প্রবেশ করবেন। সন্ধ্যায় আধিবাস হবে।

তবে বৈশ্বিক মহামারী করোনার কারনে দেবী দুর্গার ভক্তকুল জাঁকজমক ভাবে তার আগমনের বার্তা জানাতে পারছে না। দেবি দুর্গাকে মঙ্গলঘাটে প্রতিষ্ঠা করে চন্ডি পুজার মধ্য দিয়ে শুরু হল ষষ্ঠি’র দিন। কলাবধুরুপে মন্দিরে প্রবেশ করবেন দেবি দুর্গা।

তবে করোনাভাইরাস মহামারির কারণে পূজার আয়োজন অনেকটা সীমাবদ্ধ রাখা হয়েছে মন্ডপগুলো।

এদিকে বনানী পুজা মন্ডপ পরিদর্শনে এসে রেব মহাপরিচালক চৌধুরী আব্দুল্লাহ আল মামুন বলেন,সারাদেশে আমেজ না থাকলেও সীমিত পরিসরে পূজা দেশব্যাপী চলবে, সর্বোচ্চ নিরাপত্তা দিতে মাঠে থাকবে রেব।

ফরিদপুরে প্রতিমা ভাংচুরের ঘটনায় -২ জন গ্রেফতার করা হয়েছে,পূজাকে কেন্দ্র করে কোন নাশকতার সম্ভাবনা নেই বলেও জানান রেব মহাপরিচালক।

১৭ সেপ্টেম্বর মহালয়ার মধ্য দিয়ে দুর্গাপূজার আনুষ্ঠানিকতা শুরু হয়। আগামী ২৬ অক্টোবর মহাদশমীতে প্রতিমা বিসর্জনে শেষ হবে দুর্গোৎসব।

শেয়ার করুন।

উত্তর দিন