পুঁজি হারিয়ে দিশেহারা দিনাজপুরের মৌসুমী চামড়া ব্যবসায়ীরা

0

মহাজনদের কাছ থেকে প্রতিদিন হাজারে ১২৫ টাকা লভ্যাংশ এবং এনজিওগুলোর কাছ থেকে সর্বোচ্চ ২৭ শতাংশ সুদে ঋণ নিয়ে পূজি হারিয়ে দিশেহারা দিনাজপুরের মৌসুমী চামড়া ব্যবসায়ীরা। গরুর চামড়া প্রতিপিস ১৫০ টাকা থেকে ২০০ টাকা পর্যন্ত বিক্রি হলেও ছাগলের চামড়ার কোন মূল্য নেই। মৌসুমী ব্যবসায়ীদের দাবি, স্থানীয় চামড়া ব্যবসায়ীদের সিন্ডিকেটের কারণে সরকারের বেঁধে দেয়া দামের অনেক কমে চামড়া কিনেও ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছেন তারা ।

এবারের কোরবানী ঈদে সরকারের বেধে দেয়া দামের অধের্ক মূল্যে চামড়া কিনেও পথে বসার উপক্রম মৌসুমী ব্যবসায়ীদের। গরুর চামড়া প্রতিপিস ১৫০ টাকা থেকে ২০০ টাকা পর্যন্ত কিনেও সেই চামড়া ব্যবসায়ীদের কাছে বিক্রি করতে পারছেন না তারা। এমনি লোকসান দিয়ে বিক্রি করতে চাইলেও চামড়া কিনছেন না চামড়া ব্যবসায়ীরা। এতে ব্যাপক লোকসানের মূখে মৌসুমৗ চামড়া ব্যবসায়ীরা

লাভের আশায় মহাজনদের নিকট থেকে হাজারে দৈনিক ১২৫টাকা লভাংশ ও এনজিওগুলোর কাছ থেকে সর্বোচ্চ ২৭ পারসেন্ট সুদে ঋণ নিয়ে এবার চামড়া কিনেছেন তারা। তাই পূজি হারিয়ে দিশেহারা মৌসুমী ব্যবসায়ীরা।

এদিকে কয়েক বছর ধরে ঢাকাসহ বিভিন্ন জায়গায় ব্যবসায়ীদের কাছে পাওনা রয়েছে ৭ থেকে ৮ কোটি টাকা। ট্যানারী মালিকরা পাওনা পরিশোধ না করায় ব্যবসায়ীরা এবার চামড়া কিনতে পারেনি।

জরুরী ভিত্তিতে কাচা চামড়া রপ্তানীতে সরকারকে দৃশ্যমান পদক্ষেপ গ্রহনের জন্য দিনাজপুরের চামড়া ব্যবসায়ীরা দাবী জানিয়েছেন।

শেয়ার করুন।

উত্তর দিন