পদ্মায় তীব্র স্রোত, দুই পাড়ে অপেক্ষায় সহস্রাধিক যানবাহন

0

পদ্মা নদীতে পানি কমলেও তীব্র স্রোতে কারণে কাঁঠালবাড়ী-শিমুলিয়া নৌরুটে সকাল থেকে রো-রো ও কেটাইপসহ ৫/৬টি ফেরি ধারন ক্ষমতার কম যানবাহন দিয়ে কোনমতে এ্যাম্বুলেন্সসহ জরুরী যানবাহন পারাপার করছে। ফলে উভয় পাড়ে সহস্রাধিক যানবাহন পারাপারের অপেক্ষায় রয়েছে। এতে যাত্রী ও পরিবহন শ্রমিকরা চরম ভোগান্তির শিকার হচ্ছেন।

তীব্র স্রোত ও নাব্য সংকটে রাতে ফেরি চলাচল বন্ধ রাখে ঘাট কর্তৃপক্ষ। এদিকে রাতে এ নৌরুট বন্ধ থাকায় যাত্রী ও যানবাহনগুলোকে বিকল্প নৌরুট ব্যবহারের পরামর্শ দিয়েছে বিআইডব্লিউটিসি ঘাট কর্তৃপক্ষ জুলাই মাস থেকেই তীব্র স্রোত ও নাব্য সংকটে ফেরি চলাচল ব্যাহত হচ্ছে। পদ্মা নদীতে নাব্য সংকট ও তীব্র স্রোতে অব্যাহত থাকায় ঠিকমতো চলতে পারছে না ফেরিগুলো। কাঁঠালবাড়ী-শিমুলিয়া নৌরুটে ৪টি রো-রোসহ মোট ১৮টি ফেরি থাকলেও সংকটের কারনে মাঝে মাঝেই চলাচল ব্যাহত হওয়ার পাশাপাশি দীর্ঘসময় বন্ধও থাকছে ফেরি চলাচল। অন্যদিকে, প্রিয়জনের সাথে ঈদ শেষে আনন্দ শেষে কর্মস্থলে ফিরতে শুরু করেছে সাধারণ মানুষ। তবে ঈদের চতুর্থ দিনেও এখন পর্যন্ত রাজবাড়ীর দৌলতদিয়া ফেরি ঘাটে নেই যাত্রী ও যানবাহ নের বাড়তি চাপ।

এদিকে, আজও চাপ নেই পাটুরিয়া-দৌলতদিয়া নৌরুটে। দেশের দক্ষিণ-পশ্চিম অঞ্চলের ২১ জেলার মানুষ এখনও ফিরতে শুরু করেনি ঢাকার দিকে। সকালে দৌলতদিয়া শতাধিক পণ্যবাহী ট্রাক ফেরি পারা পারের অপেক্ষায় থাকলেও সকাল ১০ টার মধ্যে সব যানবাহন পারা পার হয়েছে। বিআইডব্লিউটিসির আরিচা কার্যালয়ের ভারপ্রাপ্ত ডিজিএম মো. জিল্লুর রহমান বলেন মঙ্গলবার নৌরুটে ছোট বড় মিলে ১৫টি ফেরি দিয়ে যানবাহন পারা পার করা হচ্ছে।

শেয়ার করুন।

উত্তর দিন