শুক্রবার, জুলাই ১

ঢাকার নয়াপল্টনে সমাবেশকে কেন্দ্র করে বিএনপি নেতাকর্মীদের সাথে পুলিশের ব্যাপক সংঘর্ষ ঘটেছে। এ সময় অর্ধ-শতাধিক কর্মীকে আটক করা হয়। সকালে দলের কেন্দ্রীয় কার্যালয়ের সামনে সাম্প্রদায়িক সহিংসতার বিরুদ্ধে সম্প্রীতি সমাবেশ করে দলটি। সমাবেশ শেষে মিছিল নিয়ে যাওয়ার পথে নাইটিঙ্গেল মোড়ে পুলিশের সঙ্গে বিএনপি নেতা-কর্মীদের সংঘর্ষ ঘটে। সমাবেশে মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর সরকারের পদত্যাগ দাবি করে বলেন, জনতা এ সরকারকে আর চায় না।

সাম্প্রদায়িক সহিংসতার বিরুদ্ধে বিএনপি সম্প্রীতি সমাবেশ করে নয়াপল্টনে প্রধান কার্যালয়েরে সামনে। সমাবেশের শুরু থেকে কঠোর অবস্থানে ছিল পুলিশ। সংক্ষিপ্ত সমাবেশ শেষে মিছিল বের করলে বাধা দেয় পুলিশ। এতে পুলেশের সঙ্গে বিএনপির নেতা–কর্মীদের ধাওয়া পাল্টা ধাওয়া শুরু হয়। পুলিশের বেধড়ক লাঠিচার্জের প্রতিবাদে ইটপাটকেল নেক্ষেপ করে পুলিশ। জবাবে ফাঁকা গুলি ও কাঁদানে গ্যাসের শেল ছোড়ে পুলিশ। টিকতে না পেরে অলিগলিতে অবস্থন নেয় বিএনপি কর্মীরা। এক পর্যায়ে পুলিশ আশপাশের গলিতে ঢুকে ধাওয়া দেয়। এমন অবস্থা চলতে থাকে প্রায় ২০ মিনিট।

বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর অভিযোগ করেন, সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতি রক্ষা করতে সরকারের চরম ব্যর্থতার পরিচয় দিয়েছে। জনতা এ সরকরের পদত্যাগ চায়।

সমাবেশে আসার আগে তাঁদের ৫০ জনের বেশি নেতা–কর্মীকে আটক করা হয়েছে বলে জানান মির্জা ফখরুল।
সট: মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর, মহাসচিব, বিএনপির
আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যদের দাবি, বিএনপির মিছিলের অনুমতি ছিল না। শান্তিপূর্ণ সমাবেশে পুলিশ বাধা না দিলেও বিএনপির নেতাকর্মীরা পুলিশের ওপর হামলা চালায়।

প্রায় এক ঘন্টা পর পরিস্থিতি স্বাভাবিক হয়ে আসে।

Share.

Leave A Reply