দেশি-বিদেশি বাজারে টানা দরপতনে দিন দিন সংকুচিত হচ্ছে দেশের চামড়া শিল্প

0

দেশি-বিদেশি বাজারে টানা দরপতনে দিন দিন সংকুচিত হচ্ছে দেশের চামড়া শিল্প।আসছে ঈদে পর্যাপ্ত ঋন সুবিধা পায়নি ব্যবসায়ীরা। করোনার প্রভাব ও শ্রমিক সংকটসহ নানা সমস্যায় দিশেহারা তারা। বাড়তি ভোগান্তি হিসেবে দেখা দিয়েছে ট্যানারির সেন্টার ওয়াটার ট্রিটমেন্ট প্ল্যান্টের অসমাপ্ত কাজ। তবে, এজন্য চিন্তার কোনো কারণ নেই বলে জানান, কর্মকর্তারা।

দেশে প্রতিবছর প্রায় দেড় কোটি গবাদি পশুর চামড়া কেনা হয়। এর ৮০ ভাগই সংগ্রহ করা হয় কোরবানির ঈদে। এ মৌসুমে লাখ লাখ টাকা বিনিয়োগ করে থাকেন দেশের প্রান্তিক ব্যবসায়ীরাও। তবে, করোনা পরিস্থিতিতে সংকটে পড়ে ব্যবসা ছেড়ে দিয়েছেন অনেকেই। গেলো বছরের মতো এবারও লোকসানের আশংকা করছে তারা।

গত কয়েক বছর ধরে চামড়া শিল্পে নৈরাজ্য চলছে। এরকম হলে চামড়া না কেনার পরামর্শ দেন, এই ব্যবসায়ী। পর্যাপ্ত ঋণ সুবিধা না পেয়ে শংকায় রয়েছে চামড়া ব্যবসায়ীরা। গেলো বছরের চামড়া এখনো পড়ে রয়েছে ট্যানারিতে। এছাড়া, সিইটিপি পুরোপুরি চালু না হওয়ায় বাড়তি উদ্বেগ দেখা দিয়েছে বলে জানান, ট্যানারি মালিকরা।

চামড়া শিল্পনগরীর আশেপাশের পরিবেশও ঝুঁকিতে রয়েছে। গ্রামবাসী ক্ষতিগ্রস্থ হচ্ছে বলে জানান, স্থানীয় জনপ্রতিনিধি। গেলো বছরের মতো এবারও ৮০ লাখ গবাদি পশুর চামড়া সংগ্রহের লক্ষমাত্রা ধরা হয়েছে বলে জানায়, ট্যানারি এসোসিয়েশন

শিল্পনগরীর সমস্যা সমাধানে বিসিক কাজ করছে বলে জানান, প্রকল্প পরিচালক। করোনার কথা মাথায় রেখে সরকার চামড়া শিল্পের উন্নয়নে পদক্ষেপ নেবে বলে আশা করে সংশ্লিষ্টরা।

শেয়ার করুন।

উত্তর দিন