জামালপুরে চালু হয়েছে সাপ্তাহিক নকশী হাট

0

জেলা ব্র্যান্ডিংয়ের অংশ হিসেবে জামালপুরের নারী উদ্যোক্তাদের নকশী সূচিপণ্যের বাজারজাত করার লক্ষ্যে চালু হয়েছে সাপ্তাহিক নকশী হাট। জেলার নারী কর্মীদের হাতে-তৈরি নকশী সূচিপণ্য যাতে সঠিক দামে সরাসরি ক্রেতাদের হাতে পৌঁছে, সেজন্য সপ্তাহে প্রতি শনিবার এই হাট বসছে।

জামালপুরের নকশী কাঁথা বাংলাদেশের গর্বগাঁথা”। এখানকার উন্নত মানের নকশী সূচিপণ্যের চাহিদা ঢাকাসহ দেশের সব বড় বড় শহরে। এ জেলায় প্রত্যক্ষ ও পরোক্ষভাবে ৪ লাখেরও বেশী নারীকর্মী জড়িয়ে আছে এই নকশী সূচিশিল্পের সাথে। সুঁই-সুতায় নানা ডিজাইন আর রঙে তারা ফুটিয়ে তোলেন নকশী কাঁথা, বেডকাভার, শাড়ি, ফতুয়া, পাঞ্জাবী, সালোয়ার-কামিজসহ নানা পণ্য। কিন্তু জেলায় তাদের জন্য নকশী সূচিশিল্পের নির্দিষ্ট কোন বাজার না থাকায় তৈরিপণ্য ন্যায্য দামে বিক্রিতে অনেক বেগ পেতে হতো। তাই সপ্তায় প্রতি শনিবার এই নকশী হাটের ব্যবস্থা করেছে স্থানীয় প্রশাসন। এর মধ্য দিয়ে নারী বিক্রেতারা তাদের পণ্য মধ্যস্বত্বভোগীদের দৌরাত্ম্য ছাড়াই ন্যায্য মূল্যে বিক্রি করতে পারায় খুশি নকশী উদ্যোক্তারা।

সকল নকশী পাঞ্জাবী, সালোয়ার-কামিজ, ফতুয়া, বেডকাভার, শাড়ি, লেহেঙ্গা, সালোয়ার-কামিজসহ সবই এখানে একসাথে পাওয়া যাচ্ছে। নকশী পণ্যের দামও এখানে নাগালের মধ্যে থাকায় সাধ ও সাধ্যের সমন্বয় ঘটিয়ে পছন্দের পণ্যটি কিনতে পারছেন ক্রেতারা। নারীর ক্ষমতায়নে সংশ্লিষ্ট উদ্যোক্তাদের স্বাবলম্বী করতে এবং তাদের পণ্যের সঠিক বাজারজাত নিশ্চিতে এই নকশী হাটে সব ধরনের সহযোগিতার আশ্বাস দিলেন জেলা প্রশাসক। নকশী হাটে জেলার প্রায় ৩শ’ হস্তশিল্পের দোকানী তাদের সূচিশিল্পের পসরা নিয়ে বসছে। গুণেমানে সেরা জামালপুরের নকশীশিল্প সঠিক বিপণন ব্যবস্থায় দেশের গন্ডি পেরিয়ে বিদেশী ক্রেতাদেরও আকৃষ্ট করবে বলে প্রত্যাশা সবার।

শেয়ার করুন।

উত্তর দিন