চরম ভোগান্তিতে নিম্ন আয়ের শ্রমজীবীরা

0

করোনার ঝুঁকি এড়াতে লকডাউনের চতুর্থ দিনে ফাঁকা রাজধানীতে বেশিরভাগ খাবারের দোকান বন্ধ থাকায় চরম ভোগান্তিতে পড়ছেন নিম্ন আয়ের শ্রমজীবীরা। ফুটপাত ও বাজারে দু’একটা দোকানে খাবার মিললেও প্রয়োজনীয় ক্রেতার অভাবে রেস্টুরেন্টগুলো চালু রাখা যাচ্ছে না বলে দাবি বিক্রেতাদের। সড়ক ও বাজারে মানুষের চলাচল কমে যাওয়ায় অনাহারে রয়েছেন ভিক্ষুক ও প্রতিবন্ধীরাও।

দেশে প্রাণঘাতি করোনা ভাইরাসের প্রাদুর্ভাব এড়াতে সরকারের নির্দেশনায় হোম কোয়ানেইন্টাইনের চতুর্থ দিনে রাজধানীর মতিঝিল, শাহবাগ ও ফার্মগেটের চিত্র এটি। স্বাভাবিক অবস্থায় মানুষের ভীড়ে তিল পরিমাণ জায়গা না থাকলেও করোনা আতঙ্কে এসব এলাকা একেবারেই জনশূন্য।

করোনা সংক্রমণ এড়াতে দেশব্যাপি ১০ দিনের এই “লক ডাউনে” জরুরি সেবা সার্ভিস ছাড়া সব অফিস আদালত ও দোকানপাটসহ সব কিছু বন্ধ হয়ে যায়। করোনা ভাইরাস ছড়িয়ে পড়ায় আতঙ্কে ও উৎকন্ঠায় জনজীবন। নিয়ন্ত্রিত জীবনে প্রয়োজন ছাড়া কেউ ঘর থেকে বের হচ্ছেন না।এতে অনাহারে দিন কাটাচ্ছেন প্রতিবন্ধী ভিক্ষুকরা।

তবে জীবন জীবিকার তাগিদে ঢাকায় নিম্ন আয়ের জন্য ছুটেছেন শ্রমজীবিরা। খারারের দোকান বন্ধ থাকায় বিপাকে পড়েছেন তারা।

মতিঝিল-ফকিরাপুলে কয়েকজন খাবার বিক্রেতা জানান, করোনা ঝুকি নিয়ে দোকান খোলা রাখলেও বেচাকেনা নেই।

এদিকে জনসাধারণের ঘরে থাকা নিশ্চিত করেত সড়কে তৎপর রয়েছে আইন শৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যরা।

শেয়ার করুন।

উত্তর দিন