গড়াই নদীর প্রবল চাপে ভেসে গেছে কুমারখালী উপজেলার পাঁচটি গ্রাম

0

কুষ্টিয়ায় গড়াই নদীর প্রবল চাপে ভেসে গেছে কুমারখালী উপজেলার পাঁচটি গ্রাম। বাঁশ ও বালির বস্তা দিয়ে নিজেদের রক্ষার চেষ্টা করে যাচ্ছে এলাকাবাসী। তাদের অভিযোগ, বাঁধ রক্ষায় পানি উন্নয়ন বোর্ডের ৪০ কোটি টাকার প্রকল্প কোনো কাজেই আসেনি। বালির বস্তার বাঁধ ভেঙ্গে যাওয়ার আশংকা রয়েছে এখনও পুরো এলাকায়।

পাঁচ আগস্ট রাতে হটাৎ করেই বাঁধ ভেঙ্গে কুমারখালী উপজেলার চাপড়া ইউনিয়নের পাঁচটি গ্রামে গড়াই নদীর পানি ঢুকে সব কিছু ভাসিয়ে নিয়ে যায়। পানির বিকট শব্দে ঘুম ভাঙ্গা মানুষ বালি ভর্তি বস্তা ও বাঁশ দিয়ে বাঁধ রক্ষার চেষ্টা করে। কিন্তু, রাতেই গ্রামগুলো প্লাবিত হয়ে যায়।

প্রতিবছর বর্ষা মৌসুম আসার আগে নিজেরাই বাঁধ রক্ষার কাজ করে। এবার পানি উন্নয়ন বোর্ড প্রতিশ্রুতি দিয়ে শেষ পর্যন্ত কিছু করেনি বলে অভিযোগ এলাকাবাসীর।বাঁধ রক্ষায় কোনো বরাদ্দ নেই বলে জানান, ইউপি চেয়ারম্যান। পানি উন্নয়ন বোর্ডকে সব অবহিত করা হয়েছে বলে জানান, ইউএনও। চাপড়ায় গড়াই নদীর পাড় রক্ষা ও দেড় কিলোমিটার বাঁধ নির্মাণের জন্য ৪০ কোটি টাকার প্রকল্প হাতে নেয়া হয়েছে। বর্ষার আগেই ব্লক ফেলার কথা ছিল। কিন্তু ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান তা করেনি বলে অভিযোগ রয়েছে। অভিযোগ অস্বীকার করে এই কর্মকর্তা জানান, বর্ষা শেষে পুরোদমে কাজ শুরু হবে।

স্থায়ীভাবে বেড়ি বাঁধ নির্মিত না হলে এলাকা ছেড়ে কয়েক হাজার মানুষকে চলে যেতে হবে বলে আশংকা করছে, স্থানীয়রা।

শেয়ার করুন।

উত্তর দিন