খাগড়াছড়িতে পর্যটকদের কাছে জনপ্রিয় হয়ে উঠেছে রহস্যময় ‘বাদুড় গুহা’

0

খাগড়াছড়িতে পর্যটকদের কাছে জনপ্রিয় হয়ে উঠেছে রহস্যময় ‘বাদুড় গুহা’। স্থানীয়দের কাছে যা ‘তকবাক হাকর’ নামে পরিচিত। দিনদিন বাড়ছে পর্যটকের সংখ্যা। তবে গুহায় যাতায়াত ও নিরাপত্তা নিয়ে রয়েছে নানা শঙ্কা। তবে স্থানীয় প্রশাসন বলছে, দ্রুতই অবকাঠামো নির্মাণসহ যাতায়াত সমস্যার সমাধান হবে।

নদী,উপত্যকা,ঝরনা আর ঝিরি নিয়ে পাহাড়ি জনপদ খাগড়াছড়ি পর্যটকদের কাছে বরাবরই দারুণ আর্কষনীয়। প্রতিদিন এখানকার নৈসর্গিক সৌন্দর্য অবলোকন করে মুগদ্ধ দেশি বিদেশি পর্যটকরা।

পর্যটকদের কাছে নতুন আকর্ষনীয় স্থান খাগড়াছড়ির ‘বাদুড় গুহা’ যা ‘তকবাক হাকর’ নামে পরিচিত। খাগড়াছড়ি-দীঘিনালা সড়ক থেকে উচুঁ নিচু পাহাড়ি পথে গুহায় যেতে সময় লাগে ৪০ মিনিট। উঁচু পাহাড় বেয়ে নামতে হবে অন্তত ৫শ ফুট। গুহার পাশে গভীর খাদে রয়েছে টারশিয়ান যুগের কালো পাথর। গুহাজুড়ে বাদুড়ের আস্তানা। আর পাশেই বয়েছে ঝিরি ও বড় ঝরনা। গুহা ও ঝরনার সৌর্ন্দয্য উপভোগ করতে আসতে শুরু করেছে পর্যটকরা।

প্রাকৃতিক এই গুহার দৈর্ঘ্য ৬৫ ফুট। উচ্চতায় ৩০-৩৫ ফুট ।গুহার প্রস্থ গড়ে ৪ থেকে ৫ ফুট।পুরো গুহাজুড়ে অন্ধকার। যেতে হয় মশাল জ্বালিয়ে। গুহার সৌর্ন্দয্য দেখে মুগ্ধ হবে যে কেউ।

গুহায় পর্যটকদের নিরাপদ যাতায়াতে অবকাঠামো নির্মানের কথা জানান স্থানীয় প্রশাসন।

শেয়ার করুন।

উত্তর দিন