সাবেক রাষ্ট্রপতি হুসেইন মুহম্মদ এরশাদের মৃত্যুবার্ষিকী উপলক্ষে নানা কর্মসুচি পালনের উদ্যোগ

0

কাল ১৪ জুলাই সাবেক রাষ্ট্রপতি ও জাতীয় পার্টির প্রতিষ্ঠাতা চেয়ারম্যান হুসেইন মুহম্মদ এরশাদের প্রথম মৃত্যুবার্ষিকী। দিবসটি উপলক্ষে দিনব্যাপী নানা কর্মসুচি হাতে নিয়েছে জাতীয় পার্টি। ইতিমধ্যে সমাধি নির্মানের কাজও সম্পন্ন হয়েছে। তবে তার স্মৃতি ধরে রাখতে এরশাদ স্মৃতি কমপ্লেক্স নির্মানের দাবী জানিয়েছে তৃণমুলের নেতাকর্মীরা।

১৯৮২ থেকে ১৯৯০ নয় বছর রাষ্ট্রক্ষমতায় থেকে অবকাঠামোগত উন্নয়ন, অর্থনৈতিক সমৃদ্ধিসহ গ্রাম বাংলার উন্নয়ন ছিল চোখে পড়ার মত। রাষ্ট্রধর্ম ইসলাম ঘোষণা, শুক্রবার সাপ্তাহিক ছুটি, ধর্মীয় প্রতিষ্ঠানের বৈদ্যুতিক বিল মওকুফসহ উপজলো ব্যবস্থার প্রবর্তক ছিলেন হুসেইন মুহম্মদ এরশাদ। তার আমলেই মুক্তিযোদ্ধাদের জাতির শ্রেষ্ঠ সন্তান হিসেবে ঘোষণা দেয়া হয়।

১৯৮৬ সালে তিনি প্রতিষ্ঠা করেন জাতীয় পার্টি। শুরু থেকেই বৃহত্তর রংপুর পরিনত হয় জাতীয় পার্টির দুর্গে। আর তাইতো সামরিক কর্মকর্তা হবার পরও ভক্ত ও অনুসারীদের দাবীর মুখে সাবেক রাষ্ট্রপতি এরশাদকে সমাহিত করা হয় রংপুরের পল্লী নিবাসে। পল্লীবন্ধুর মৃত্যুবার্ষিকীকে ঘিরে সমাধি নির্মান শেষে চলছে ধোয়া-মোছার কাজ। দলটির অঙ্গ ও সহযোগী সংগঠনের পক্ষ থেকে নেয়া হয়েছে নানা কর্মসুচি।
ভক্সপপ:

স্থানীয় নেতারা জানিয়েছেন দিবসটি উপলক্ষে সব প্রস্তুতি সম্পন্ন করেছেন তারা। তবে আগামী প্রজন্মের মাঝে তার স্মৃতি তুলে ধরতে এরশাদ স্মৃতি কমপ্লেক্স নির্মানের দাবী জানিয়েছেন নেতা-কর্মীরা। স্থানীয় নেতা-কর্মীরা ছাড়াও দলটির চেয়ারম্যান জি এম কাদের, মহাসচিব মসিউর রহমান রাঙ্গাসহ প্রেসিডিয়াম সদস্য ও সংসদ সদস্যদের পল্লীবন্ধুর সমাধিতে শ্রদ্ধা নিবদনের কথা রয়েছে।

শেয়ার করুন।

উত্তর দিন