করোনা ভাইরাস ছড়িয়ে পড়া ঠেকাতে আইন-শৃঙ্খলাবাহিনীকে আরো কঠোর হওয়ার তাগিদ

0

রাজধানীতে করোনার প্রাদুর্ভাবে ঘরে থাকার নির্দেশনা মানছেন না অনেক নগরবাসী। যথাযথভাবে মানা হচ্ছে না সামাজিক দূরত্বও। নিয়ম ভেঙে রাজধানীর কাঁচাবাজার ও নিত্যপ্রয়োজনীয় পণ্যের দোকানে জনসাধারণের অবাধে চলাফেরা বেড়েছে। যদিও রাজধানীর অধিকাংশ সড়ক ও মোড়ে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী চেকপোষ্ট বসিয়ে বাইরে আসা নাগরিকদের তল্লাশি ও জিজ্ঞাসাবাদ অব্যাহত রেখেছে।এঅবস্থায়, সামাজিকভাবে করোনা ভাইরাস ছড়িয়ে পড়া ঠেকাতে আইন-শৃঙ্খলাবাহিনীকে আরো কঠোর হওয়ার তাগিদ দিয়েছেন সচেতন নগরবাসী।

দেশে করোনা ভাইরাসের প্রাদুর্ভাব কমানো ও সামাজিকভাবে ছড়িয়ে পড়া ঠেকাতে সরকার ঘোষিত সাধারণ ছুটির মেয়াদ ১১ এপ্রিল পর্যন্ত বাড়ানো হয়েছে। একইসঙ্গে জরুরি প্রয়োজন ছাড়া ঘর থেকে বের না হতে এবং নির্দিষ্ট কিছু সেবা প্রতিষ্ঠান ও দোকানপাট ছাড়া সব ধরনের ব্যবসা প্রতিষ্ঠান বন্ধ রাখার নির্দেশনা দেয়া হয়। করোনা আতংকে প্রথম দিকে নির্দেশনা মানা হলেও গেলো কয়েকদিন আবার এর ব্যত্যয় ঘটতে শুরু করে।

এ অবস্থায়, মানুষকে ঘরে রাখতে, কিছুটা কঠোর হতে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর প্রতি নির্দেশনা দেয়া হয়। সকাল থেকে রাজধানীর ৬১ স্থানে চেকপোষ্ট বসিয়ে জরুরি প্রয়োজনের গাড়ি ছাড়া অন্য যানবাহন থামিয়ে জিজ্ঞাসাবাদ করে ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশ।

তবে পুলিশের জিজ্ঞাসাবাদের মুখে ঘুরেফিরে সবাই বাইরে বেরোনোর কারণ হিসেবে বাজার করা, ওষুধ কেনা, হাসপাতাল বা ব্যাংকে যাওয়ার কথাই বলছেন।

তবে ভিন্ন চিত্র রাজধানীর বাজারগুলোতে। সরেজমিন রাজধানীর কারওয়ান বাজারে দেখা যায়, বাজারজুড়ে মানুষের ভিড়। বাজার করতে এসে নিরাপদ দূরত্বের তোয়াক্কা করছেন না অনেকেই। এতে করোনা ছড়িয়ে পড়ার আশংকা জানান কেউ কেউ।

আগামী দু’সপ্তাহ বাংলাদেশ করোনা সংক্রমনের উচ্চ ঝুঁকিতে থাকবে বলে সতর্ক করেছে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা ও সরকারের রোগতত্ত্ব, রোগ নিয়ন্ত্রণ ও গবেষণা প্রতিষ্ঠান আইইডিসিআর। তাই সম্ভাব্য ঝুঁকি এড়াতে রাজধানীর সব জায়গায় সামাজিক দুরত্বের বিষয়টি কঠোরভাবে প্রতিপালন করার পরামর্শ সচেতন মহলের।

শেয়ার করুন।

উত্তর দিন