ওসি প্রদীপ কুমার দাশের সম্পদের খোঁজে নেমেছে দুদক

0

টেকনাফের আলোচিত ওসি প্রদীপ কুমার দাশের জ্ঞাত আয় বহিভূর্ত সম্পদের খোঁজে নেমেছে দুর্নীতি দমন কমিশন-দুদক। নামে বেনামে অবৈধ সম্পদ থাকলে অনুসন্ধানে তা বেরিয়ে আসবে বলে মনে করেন, দুর্নীতি দমন কমিশন দুদক সচিব দিলাওয়ার বখত। আর দুদক আইনজীবী খুরশীদ আলম খানের মতে, অভিযোগ থেকে অব্যাহতি না পাওয়া পর্যন্ত ওসি প্রদীপের স্ব পদে ফেরার কোন সুযোগ নেই।

১৯৯৫ সালে এস আই হিসেবে পুলিশে যোগ দেয় প্রদীপ। পরে পদোন্নতি পেয়ে হন ওসি। ঘুরেফিরে পোস্টিং নিতেন শুধু সিএমপি আর কক্সবাজার জেলায়। ২৪ বছরে চাকরি জীবনে অঢেল সম্পদের পাহাড় গড়েছেন প্রদীপ । চট্টগ্রাম ও কক্সবাজারে নামে বেনামে রয়েছে একাধিক বাড়ি, প্লট, ফ্ল্যাট। অর্থ বিনিয়োগ করেছেন বিভিন্ন ব্যবসায়। বিদেশেও একাধিক বাড়ি আছে বলে অভিযোগ। আর এভাবেই প্রদীপ নীচের নয়, খোদ প্রদীপ নামটিই হয়ে উঠেছে অন্ধকারের সমার্থক শব্দ। সবশেষ অবসরপ্রাপ্ত মেজর সিনহা হত্যাকাণ্ডে অভিযুক্ত হবার পর এই ওসি’র অবৈধ সম্পদের বিষয়টি এখন সবার মুখে মুখে।

এতসব অভিযোগের মুখে প্রদীপে জ্ঞাত আয় বর্হিভূত সম্পদের অনুসন্ধানে নামে দুদক। মুঠোফোনে দুদক সচিব জানান, অনুসন্ধান চলমান রয়েছে।২০১৮ তে প্রদীপের বিরুদ্ধে দুদকের অনুসন্ধান শুরু হয়। আর দুদক আইনে ৬০ কার্যদিবসের মধ্যে তদন্ত শেষের কথা থাকলেও তা বাধ্যতামূলক নয় বলেও জানান খুরশীদ আলম খান।

শেয়ার করুন।

উত্তর দিন