এবার হটস্পট ধরে শতভাগ লকডাউনে যাচ্ছে সরকার

0

সাধারণ ছুটি শেষের এক সপ্তাহ পর ধীরে ধীরে চেনা রূপে ফিরতে শুরু করেছে রাজধানী ঢাকা। কর্মচাঞ্চল্য বেড়ে যাওয়ায় রাজধানীতে যানবাহনের পাশাপাশি বাড়ছে মানুষের চলাচল। রাজধানীর বাস টার্মিনালগুলোতে জীবাণুনাশক টানেল থাকলেও সেগুলো ব্যবহারে যাত্রী ও শ্রমিকদের আগ্রহ নেই। এমনকি গণপরিবহনে যাতায়াতে বাধ্যতামূলক মাস্ক ব্যবহারের কথা থাকলেও সেটি মানা হচ্ছে না। তাই এবার করোনা সংক্রমণ রোধে জোন ভিত্তিক শতভাগ লকডাউনে যাচ্ছে সরকার। এ সংক্রান্ত একটি প্রস্তাব প্রধানমন্ত্রীর অনুমোদনের জন্য রোববারই পাঠানো হবে বলে জানিয়েছেন জনপ্রশাসন প্রতিমন্ত্রী ফরহাদ হোসেন।

টানা ৬৭ দিন বন্ধ থাকার পর ১ জুন থেকে রাজধানীসহ সারাদেশে চালু হয় গণপরিবহন। এসময় গণপরিবহন চলাচলে স্বাস্থ্যবিধিগুলো কঠোরভাবে মানার নির্দেশনাও দেয়া হয়। নির্দেশনা মোতাবেক রাজধানীর বাস টার্মিনালগুলোতে জীবানুনাশক টানেল নির্মাণ করা হলেও অধিকাংক যাত্রী ও পরিবহন শ্রমিকদের সেটি ব্যবহারে অনীহা দেখা যায়। পাশাপাশি যাত্রী ও শ্রমিকদের মুখে মাস্ক ব্যবহার বাধ্যতামূলক করা হলেও এক্ষেত্রেও অধিকাংশই বেশ উদাসীন।

লকডাউন শিথিল করে গণপরিবহন চালুর পর করোনা সংক্রমণ বাড়তে থাকায় যাত্রী সংকটে পড়েছে পরিবহনগুলো। তাই যাত্রী কম থাকায় গাড়ি চালিয়ে লাভ না হয়ে উল্টো লোকসান গুণতে হচ্ছে বলেও দাবি পরিবহন শ্রমিকদের।

টার্মিনালগুলোতে কোন কোন পরিবহন জীবানুনাশক ও থার্মোমিটার দিয়ে তাপমাত্রা মাপার ব্যবস্থা রেখেছে। তবে যাত্রী কম থাকায় ৬০ শতাংশ ভাড়া বাড়ানোর পরও লোকসান গুণতে হচ্ছে বলে দাবি পরিবহন ব্যবসায়ীদের। অভিযোগ আছে যাত্রীদেরও।

এদিকে, রাজধানীতে করোনা সংক্রমণ নিয়ন্ত্রণে জোন পদ্ধতিতে শতভাগ লকডাউনে যাচ্ছে সরকার। এবারের লকডাউনে সর্বোচ্চ কড়াকড়ি আরোপ করা হবে।

শেয়ার করুন।

উত্তর দিন