এন্ড্রু কিশোরের মৃত্যুতে গভীর শোক প্রকাশ করেছেন এসএ গ্রুপের ব্যবস্থাপনা পরিচালক

0

কিংবদন্তী শিল্পী এন্ড্রু কিশোরের অকাল মৃত্যুতে গভীর শোক প্রকাশ করেছেন এসএটিভি ও এসএ গ্রুপের ব্যবস্থাপনা পরিচালক সালাহউদ্দিন আহমেদ। তিনি বলেন, বাংলা গানের প্লেব্যাক সম্রাট এন্ড্রু কিশোর সারাজীবন সিনেমা এবং স্টেজ শো’ করেই মাতিয়ে রেখেছিলেন ভক্তদেরকে। বাংলাদেশের ইতিহাসে এসএটিভিতে প্রথম অনুষ্ঠিত আন্তর্জাতিক মানের অনুষ্ঠান- “বাংলাদেশী আইডল”-এর বিচারক ছিলেন এণ্ড্রু কিশোর। কোটি তরুণকে তিনি দিয়েছেন শিল্পী হবার অনুপ্রেরণা। জুগিয়েছেন আশা ও সাহস।

দীর্ঘ দশ মাস ক্যানসারের সঙ্গে লড়াই করে দয়ালের কাছেই ফিরে গেলেন জনপ্রিয় এই কণ্ঠ যাদুকর। তিনি আর রইলেন না।

৩০ বছরের দীর্ঘ ক্যারিয়ারে চলচ্চিত্রের অসংখ্য গানে কণ্ঠ দিয়েছেন এন্ড্রু ; মানুষকে ভাসিয়েছেন আবেগের স্রোতে। ৮ বার জিতেছেন জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার। তাইতো সিনেমার গান মানেই যেন এন্ড্রু কিশোরময়।

রুদ্র মুহম্মদ শহীদুল্লার লেখা কবিতাকেও অসাধারন গায়কীতে কন্ঠে ধারণ করেছেন এন্ড্রু।

ভালো আছি ভালো থেকো…আকাশের ঠিকানায় চিঠি লিখো

এমন অসংখ্য গায়কীতে দেশে বিদেশে জনপ্রিয়তার তুঙ্গে থাকলেও কখনো বেতার ও টেলিভিশনের তালিকাভুক্ত শিল্পী হননি। অসম্ভব রুচিবান এন্ড্রু বাছাই করে করে অনুষ্ঠানে যোগ দিতেন বা বিচারক হতেন। এস এ টিভির বাংলাদেশী আইডল তরুনদের ভালো প্লাটফর্ম হবে বুঝতে পেরে সাথে সাথেই বিচারক হতে রাজী হয়েছিলেন। রাত দিন অনেক শ্রম দিয়ে গড়েছিলেন আগামীর কন্ঠ যোদ্ধাদের ।

দীর্ঘ পথ পাড়ি দিয়ে সমাপনী দিনেও তার আশা ছিল আর্ন্তজাতিক মানের অনুষ্ঠান ’’বাংলাদেশী আইডল’’এর তরুনরাই একদিন হাল ধরবে সঙ্গীতাঙ্গনের।

কিংবদন্তী শিল্পী এন্ড্রু কিশোর-এর অকাল মৃত্যুতে সঙ্গীত জগতের বড় ধরনের ক্ষতি হয়েছে। পাশাপাশি সমানভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে এসএ টিভি পরিবার-এমনটাই জানালেন ব্যবস্থাপনা পরিচালক সালাহউদ্দিন আহমেদ।

তিনি জানান, এস এ টিভিতে শুরু হতে যাওয়া জুনিয়র আইডল ঘিরেও ছিল এ্যন্ড্রু কিশোরের অনেক পরিকল্পনা। যা আর হলোনা।

এন্ড্রু কিশোর বেচে নেই, তবে তার দীক্ষা নেয়া হাজারো তরুণ শিল্পীরা আইডল হয়ে বাঁচিয়ে রাখবেন প্রাণের এন্ড্রুকে তাদের হৃদয়ে, আর কন্ঠে ধারণ করবে তার গাওয়া কালজয়ী অমর এমন গানগুলোকে….

হায়রে মানুষ রঙিন ফানুষ… দম ফুরাইলে ঠুস….

শেয়ার করুন।

উত্তর দিন