এখন পর্যন্ত নৌ-দুর্ঘটনা রোধে তেমন কোনো কার্যকর পদক্ষেপ গ্রহণ করা হয়নি দাবি

0

প্রতিবছর লঞ্চডুবির মতো মর্মান্তিক ঘটনা ঘটলেও এখন পর্যন্ত নৌ-দুর্ঘটনা রোধে তেমন কোনো কার্যকর পদক্ষেপ গ্রহণ করা হয়নি দাবি করছেন বিশেষজ্ঞরা। তারা বলেছেন, চালকদের অশুভ প্রতিযোগিতা, নৌপথে বিরাজমান নৈরাজ্য, লঞ্চ চালকদের অদক্ষতা আর ফিটনেসবিহীন লঞ্চ চলাচল দুর্ঘটনার অন্যতম কারন। স্বচ্ছতা আর জবাবাদিহিতার আওতায় না আনলে আগামীতে অশনিসংকেত হয়ে দাঁড়াবে নৌ সেক্টর।

লঞ্চ দুর্ঘটনা বা লঞ্চডুবির ঘটনা এ দেশে নতুন কোনো বিষয় নয়। প্রায় প্রতিবছরই লঞ্চডুবিতে বিপুলসংখ্যক মানুষের প্রাণহানি ঘটে। সে সময় দেখা যায় স্বজনহারানোদের আর্তনাদ। এ নিয়ে কিছুদিন হইচই হয়। গণমাধ্যমগুলোয় ফলাও করে খবরাখবর প্রকাশিত ও প্রচারিত হয় এবং যথারীতি গঠিত হয় তদন্ত কমিটি।

চিরায়িত প্রথা অনুযায়ী সংশ্লিষ্টরা বলে থাকেন, ঘটনার সঙ্গে দায়ী ব্যক্তিদের বিরুদ্ধে তদন্ত প্রতিবেদন সাপেক্ষে ব্যবস্থা নেওয়া হবে। ব্যস, হয়ে গেল। এর কিছুদিন পরেই দেশে ঘটে যায় আরেকটি নৌ-দুর্ঘটনা। তখন চাপা পড়ে যায় লঞ্চডুবি বা নৌ-দুর্ঘটনার আগের ঘটনাগুলো।

যখন অন্য একটি ঘটনার রেশে লঞ্চডুবি বা নৌ-দুর্ঘটনার ঘটনা চাপা পড়ে যায়, তখন আর কেউ জানতে পারে না ওই লঞ্চডুবির জন্য দায়ী ব্যক্তিদের বিরুদ্ধে আদৌ কোনো ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে কি না। কিংবা লঞ্চডুবির ঘটনায় গঠিত তদন্ত কমিটির রিপোর্ট আদৌ আলোর মুখ দেখেছে কি না।

বিশেষজ্ঞরা বলছেন, আইনের সঠিক প্রয়োগ না হওয়ায় দুর্ঘটনাগুলি দায়িত্বহীনতারই কুফল। সম্প্রতি দুটি বড় দুর্ঘটনা সুষ্টু তদন্ত হয়নি জানিয়ে তারা বলছেন,অভিযুক্তরা শাস্তি না পাওয়ার কারণে বার বার এসব দুর্ঘটনায় প্রান হারাচ্ছে মানুষ। এই সেক্টরে যেন কোনো মাফিয়া চক্র না থাকে তার জন্য অভিযান পরিচালনা করতে প্রধানমন্ত্রীর হস্তক্ষেপ কামনা করেন তারা।

নৌ-দুর্ঘটনা রোধে সু-পরিকল্পিত পরিকল্পনা এবং আইনের বাস্তবায়ন হলে আগামীতে হয়তো এরকম স্বজন হারানোদের আত্ননাদ দেখতে হবে না দেশবাসীকে-এমন প্রত্যাশা বিশেষজ্ঞদের।

শেয়ার করুন।

উত্তর দিন