ঈদ আনন্দের ছোঁয়া লাগেনি দিনাজপুরের মধ্য ও নিম্নবিত্ত পরিবারে

0

দিনাজপুরের সাড়ে ছয় লাখ মধ্যবিত্ত ও নিম্নবিত্ত পরিবারে এবার ঈদ আনন্দের ছোঁয়া লাগেনি। প্রধানমন্ত্রীর দেয়া আর্থিক অনুদান থেকেও বঞ্চিত হয়েছেন তারা। অবশ্য নৌ পরিবহন প্রতিমন্ত্রী খালিদ মাহমুদ চৌধুরী দাবি করেছেন, প্রত্যেকটি উপজেলায় তারা যথাসাধ্য ত্রান সামগ্রী বিতরন করছেন। দিনাজপুর প্রতিনিধি খাদেমুল ইসলামের প্রতিবেদন।

দিনাজপুর শহর থেকে নয় কিলোমিটার দূরে বিরল উপজেলার মাতাপুকুর এলাকার ভ্যানচালক তমিজউদ্দিনের মেয়ে দুলালী।১২ বছর আগে তার বিয়ে হয়েছিল একই উপজেলার মহেশপুর গ্রামের মাহাবুর রহমানের সাথে। তাদের রয়েছে দুটি প্রতিবন্ধী ছেলে।মাদকাসক্ত স্বামীর অত্যাচার সইতে না পেরে ছেলেদের নিয়ে ১০ বছর ধরে বাবার বাড়িতে আশ্রয় নিয়েছে দুলালী। করোনার কারণে তার বাবা কর্মহীন হয়ে পড়েছে।ফলে, বেশিরভাগ সময় না খেয়ে থাকে পরিবারটি। ঈদেও কোনো সরকারি ত্রান পায়নি তারা।

কাজিপাড়ার নেছামুদ্দিন ঈদের দিনেও ভ্যান নিয়ে রাস্তায় বের হন। অনেক অপেক্ষার পরও যাত্রী না পেয়ে খালি হাতে বাড়ি ফেরেন। নেতাদের তালিকায় তার নাম না থাকায় প্রধানমন্ত্রীর দেয়া আর্থিক অনুদান থেকেও বঞ্চিত হয়েছেন বলে জানান তিনি।

জেলার ১৩ উপজেলায় নিম্নবিত্ত চার লাখ ৮০হাজার ও মধ্যবিত্ত এক লাখ ৭২হাজার পরিবারের বসবাস। তাদের বেশিরভাগ ঘরের শিশুদের নতুন কাপড় এবং ভালো খাবারের ব্যবস্থা ছিলনা। বিভিন্ন এলাকা ঘুরে প্রায় একই তথ্য পাওয়া যায়।

নৌ-প্রতিমন্ত্রী খালিদ মাহমুদ চৌধুরী জানান, পুরো জেলায় করোনায় কর্মহীন মানুষের মাঝে ত্রাণ সহায়তা দিতে নেতা-কর্মী এবং স্থানীয় জনপ্রতিনিধিদের নির্দেশ দেয়া হয়েছে।

আওয়ামী লীগের স্থানীয় এই নেতা জানান, তাদের সহায়তা অব্যাহত রয়েছে।

এদিকে, সচেতন মহলের দাবি প্রধানমন্ত্রী ঘোষিত কর্মসূচির সুবিধা না পাওয়ায় বিবর্ণ ঈদ পার করেছে জেলার বেশিরভাগ মানুষ।

শেয়ার করুন।

উত্তর দিন