শুক্রবার, জুলাই ১

 

করোনামুক্ত সময়ে ঈদের আনন্দকে দ্বিগুণ করতে পর্যটনকেন্দ্রে ভিড় করছেন দর্শনার্থীরা। ঈদের ছুটিতে বিভিন্ন বিনোদন কেন্দ্র ঘুরে দেখছেন তারা। চট্টগ্রাম, কক্সবাজার, হবিগঞ্জ ও মৌলভীবাজারের দর্শনীয় স্থান ঘুরে দেখতে পর্যটকরা এখন সময় কাটাচ্ছেন পছন্দের জায়গায়।

দু’বছর পর করোনামুক্ত পরিবেশে ঈদ আনন্দে মেতেছে নগরী চট্টগ্রামের বিনোদন কেন্দ্রগুলো।নগরীর ফয়সলেক, চিড়িয়াখানা, স্বাধীনতা কমপ্লেক্স, আগ্রাবাদ ও কাজিরদেউরী শিশুপার্ক, পতেঙ্গা সমুদ্র সৈকতে উপচে পড়া ভিড়। হঠাত বৃষ্টিতে ঈদের আনন্দে কিছুটা ভাটা পড়লেও কিছু সময়ের মধ্যে তা কেটে যায়। কর্তৃপক্ষ বলছে, আগামী এক সপ্তাহে দর্শনাথীদের চাপ আরো বাড়বে।

বিশ্বের দীর্ঘতম সমুদ্র সৈকত কক্সবাজার। সৈকতের তীর ঘেঁষে প্রায় ৮০ কিলোমিটার মেরিন ড্রাইভ। ভ্রমণপিপাসুদের প্রিয় বেড়ানোর জায়গা কক্সবাজারের অপরূপ এই প্রকৃতি। এবারের ঈদের টানা ৬ দিনের ছুটিতে অনেক পর্যটক ছুটে গেছেন সেখানে। প্রস্তুতি শেষ করে পর্যটকদের স্বাগত জানাতে প্রহর গুনছেন ব্যবসায়ীরা।

ঈদের টানা ছুটিতে খাগড়াছড়িতে পর্যটক সমাগম চোখে পড়ার মতো। জেলার আলুটিলা, জেলা-পরিষদ পার্ক, আনসার পার্ক, রিচাং ঝর্না ও মায়াবিনী লেকসহ প্রায় ৩০টি পর্যটন স্পটে ভিড় করেছে পর্যটকেরা।

মৌলভীবাজারের বিভিন্ন স্পটে পর্যটকের আনাগোনা বেড়েছে। করোনার ধকল কাটিয়ে সরকারি-বেসরকারি বিনোদন কেন্দ্র এবং হোটেল-মোটেল এখন তৈরি পর্যটক বরণে। নেয়া হয়েছে বাড়তি নিরাপত্তা ব্যবস্থা।

ঈদ পরবর্তী দুদিন পর্যটকের সংখ্যা আরো বাড়তে পারে বলে আশা করছেন পর্যটন ব্যবসায়ীরা

Share.

Leave A Reply