আগুনে দ্রুত পুড়ছে ‘পৃথিবীর ফুসফুস’-খ্যাত অ্যামাজন বন

0

আগুনে দ্রুত পুড়ছে ‘পৃথিবীর ফুসফুস’-খ্যাত অ্যামাজন বন। ব্রাজিলের মহাকাশ গবেষণা সংস্থা ন্যাশনাল ইনস্টিটিউট ফর স্পেস রিসার্স জানিয়েছে, দাবানলে প্রতি মিনিটে অ্যামাজনের প্রায় ১০ হাজার বর্গমিটার এলাকা পুড়ে যাচ্ছে, যা একটি ফুটবল মাঠের প্রায় দ্বিগুণ আয়তনের সমান। তাদের আশঙ্কা, এ অবস্থা চলতে থাকলে জলবায়ু পরিবর্তনে ভয়াবহ বিরূপ প্রভাব দেখা দেবে। এদিকে, এই পরিস্থিতিকে “বৈশ্বিক সংকট” বলে মন্তব্য করেছেন ফরাসি প্রেসিডেন্ট ইমানুয়েল ম্যাক্রোঁ।

পৃথিবীর ফুসফুস হিসেবে পরিচিত অ্যামাজন বনাঞ্চল! কেননা প্রতিবছর প্রায় ২শ’ কোটি মেট্রিক টন কার্বন ডাই-অক্সাইড শোষণ করে এই বন। আবার পৃথিবীর অক্সিজেনের প্রায় ২০ ভাগ আসে অ্যামাজন থেকেই। সেই পৃথিবীর ফুসফুসে গত কয়েক বছর ধরে আগুন লাগছে। তবে এর ভয়াবহতা এবার অতীতের সমস্ত রেকর্ড ছাড়িয়েছে।

ব্রাজিলের মহাকাশ গবেষণা সংস্থা ন্যাশনাল ইনস্টিটিউট ফর স্পেস রিসার্স জানিয়েছে, আগের বছরের তুলনায় ৮৪ ভাগ বেশি পুড়ছে অ্যামাজন। তাদের হিসাব মতে, দাবানলে প্রতি মিনিটে প্রায় ১০ হাজার বর্গমিটার এলাকা পুড়ে যাচ্ছে, আয়তনে যা দু’টি ফুটবল মাঠের সমান। সংস্থাটি বলছে, এ অবস্থা চলতে থাকলে জলবায়ু পরিবর্তনে বড় ধরনের প্রভাব পড়বে।

এদিকে, অ্যামাজন বনাঞ্চলের এই অবস্থাকে ‘বৈশ্বিক সংকট’ হিসেবে মন্তব্য করেছেন ফরাসি প্রেসিডেন্ট ইমানুয়েল ম্যাক্রোঁ। আসন্ন জি সেভেন সম্মেলনে এটিই প্রধান এজেন্ডা হওয়া প্রয়োজন বলেও তিনি মন্তব্য করেছেন।

অন্যদিকে, ম্যাক্রোঁর এই মন্তব্যের কড়া সমালোচনা করেছেন ব্রাজিলের প্রেসিডেন্ট জাইর বলসোনারো। বলছেন, ‘রাজনৈতিক সুবিধা লাভের’ জন্যই ম্যাক্রো অ্যামাজনের দাবানলকে ব্যবহার করছেন। জি-সেভেন সম্মেলনে তার দেশ অংশগ্রহণ না করায় সেখানে এ আলোচনা ‘ভুল স্থানে উপনিবেশিক মনোভাব’কে প্রকাশ করবে।

অবশ্য অ্যামাজনের দাবানল নেভানোর বিষয়ে ব্রাজিল সরকারের অবস্থান নিয়ে ক্ষুব্ধ প্রতিক্রিয়া দেখাচ্ছে বিশ্ব। অ্যামাজন বনাঞ্চলে রেকর্ড দাবানলে জাতিসংঘও গভীর উদ্বেগ প্রকাশ করেছে।

শেয়ার করুন।

উত্তর দিন