১০ কোটি টাকার বিল অস্বচ্ছ প্রক্রিয়ায় উত্তোলনের পায়তারা

0

বরিশাল শেরেবাংলা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে বাতিল হওয়া ১৩১ কোটি টাকার টেন্ডারের ভারী যন্ত্রপাতি সরবরাহের প্রায় ১০ কোটি টাকার বিল অস্বচ্ছ প্রক্রিয়ায় উত্তোলনের পায়তারার অভিযোগ পাওয়া গেছে সংশ্লিস্ট কর্তৃপক্ষের বিরুদ্ধে। অবৈধভাবে বিল দিতে সহায়তা না করায় হাসপাতালের আইসিটি কর্মকর্তাকে বদলি করা হয়েছে। তাছাড়া হাসপাতালের স্টোর কর্মকর্তা এসব যন্ত্রপাতি বুঝে পাননি। তাই বিল তোলার চেষ্টার ঘটনার সুষ্ঠু তদন্ত দাবি জানিয়েছেন সাধারণ ঠিকাদাররা।

স্বাস্থ্য মন্ত্রনালয়ের প্রশাসনিক অনুমোদন এবং অর্থ বরাদ্দ ছাড়াই ২০১৫ সালের ৭ ফেব্রুয়ারী মেডিকেল ইকুইপমেন্ট এন্ড ইনস্ট্রুমেন্ট খাতে ভারি যন্ত্রপাতি ক্রয়ের জন্য প্রায় ১৩১ কোটি টাকার টেন্ডার আহ্বান করেন তৎকালনী পরিচালক কামরুল হাসান সেলিম। ২০ আগস্ট ওই টেন্ডার বাতিলের নির্দেশ দেয় মন্ত্রণালয়। ৬ সেপ্টেম্বর টেন্ডার বাতিলের প্রজ্ঞাপন জারী করেন পরবর্তী পরিচালক নিজাম উদ্দিন ফারুক। টেন্ডার বাতিল হলেও বেঙ্গল সাইনটিফিক এন্ড সার্জিক্যাল কোম্পানী এবং মার্কেন্টাইল ট্রেড ইন্টারন্যাশনাল প্রায় ১০ কোটি টাকার ভারী মালামাল সরবরাহ করে।

ঠিকাদারকে ওই ১০ কোটি টাকা পাইয়ে দিতে পরিচালক নিজেই ইন্সট্রুমেন্ট কেয়ার টেকার, হিসাব রক্ষক এবং উপ-পরিচালকের স্বাক্ষর দিয়ে বিভাগীয় হিসাব নিয়ন্ত্রকের কার্যালয়ে বিল জমা দেন। এমনকি ওই বিলে স্বাক্ষর না দেয়ায় এর আগের ইন্সট্রুমেন্ট কেয়ার টেকারকে অন্যত্র বদলি করা হয়।

তবে কাগজপত্র যাচাই-বাছাই করে কোন ত্রুটি পাওয়া গেলে শেরেবাংলা মেডিকেলের ১০ কোটি টাকার বিল ছাড় করা হবে না বলে জানিয়েছেন হিসাব নিয়ন্ত্রণ কর্মকর্তা। আর বাতিল টেন্ডারের বিল দেয়ার বিষয়টি এড়িয়ে গিয়ে উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের নির্দেশে দুই ঠিকাদারের বিল প্রস্তুত করে হিসাব নিয়ন্ত্রকের কার্যালয়ে জমা দেয়ার কথা স্বীকার করেন হাসপাতালের পরিচালক।

এর আগেও শেরেবাংলা মেডিকেলের ৬ জন প্রাক্তন পরিচালক বাতিল হওয়া টেন্ডারের বিল দেয়ার চেষ্টা চালিয়ে ব্যর্থ হন।

শেয়ার করুন।

উত্তর দিন