সারাদেশে যথাযোগ্য ধর্মীয় মর্যাদায় পালিত হচ্ছে ঈদে মিলাদুন্নবী

0

আজ ১২ রবিউল আউয়াল। পবিত্র ঈদে মিলাদুন্নবী। প্রায় দেড় হাজার বছর আগে-এই দিনে জন্মগ্রহণ করেন সর্বশ্রেষ্ঠ নবী হয়রত হযরত মুহাম্মদ (সা:)। এই দিনেই মৃত্যুবরণ করেন তিনি।

এ উপলক্ষে রাজধানীসহ সারাদেশে যথাযোগ্য ধর্মীয় মর্যাদার মধ্য দিয়ে দিনটি পালিত হচ্ছে। মুসলমানরা বিভিন্ন মসজিদে মিলাদ মাহফিলসহ নানা আয়োজনের মধ্য দিয়ে দিনটি পালন করছে। ‘আইয়ামে জাহেলিয়াত’-এর অন্ধকার দূর করতে মহান আল্লাহ তায়ালা এই শ্রেষ্ঠ মহামানবকে পৃথিবীতে পাঠান। পরবর্তীতে তিনি বিশ্বে শান্তির ধর্ম ইসলাম প্রতিষ্ঠা করেন। ঈদে মিলাদুন্নবী উপলক্ষে রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ও সংসদে বিরোধীদলীয় নেতা রওশন এরশাদ আলাদা বাণী দিয়েছেন। এসব বাণীতে তারা দেশবাসীসহ মুসলিম উম্মাহর সবাইকে আন্তরিক শুভেচ্ছা জানান।একই সঙ্গে তারা মহানবীর জীবনাদর্শ অনুসরণ করে ভ্রার্তৃত্ববোধ ও মানব কল্যাণে ব্রতী হওয়ার আহ্বান জানান।

ঈদে মিলাদুন্নবী উপলক্ষে বিশ্বের সবচে’ বড় জশনে জুলুসের আয়োজন করা হয়েছে চট্টগ্রামে।

নেতৃত্ব দিচ্ছেন উপমহাদেশের বিখ্যাত সিরিকোট দরবার শরীফের শাহাজাদা সৈয়দ মুহুম্মদ হামিদ শাহ্ মাদ্দাজিল্লুহুল আলি। সকাল পৌনে ৯ টায় জামেয়া আহমদিয়া সুন্নিয়া কামিল মাদ্রাসা থেকে এই জুলুস বের হয়। এর আগে মোনাজাতে মাধ্যমে জুলুস শুরু করেন হামিদ শাহ। বিশ্বের বিভিন্ন দেশ থেকে আসা লাখো সুন্নী মুসলমান এতে অংশ নেন। জুলুসটি শহরের প্রধান সড়ক প্রদক্ষিণ করেছে। এসময় বিশেষ গাড়িতে বসে বিভিন্ন পয়েন্টে দেশ জাতি ও মুসলিম উম্মার শান্তি কামনা করে মোনাজাত করেন শাহাজাদা সৈয়দ মুহাম্মদ হামিদ শাহ। আয়োজকরা জানান, ১৯৭৪ সাল থেকে চট্টগ্রামে এই জুলুস শুরু হয়। যা এখন বিশ্বের সবচেয়ে বড় জুলুসে পরিণত হয়েছে।

শেয়ার করুন।

উত্তর দিন