সর্বোচ্চ আদালত সর্বসম্মতিক্রমে খালেদা জিয়ার জামিন আবেদন নাকচ

0

সর্বোচ্চ আদালত সর্বসম্মতিক্রমে খালেদা জিয়ার করা জামিন আবেদন নাকচ করেছে। একই সঙ্গে বিএনপি চেয়ারপার্সনের সম্মতি নিয়ে উন্নত চিকিৎসা নিশ্চিতে সরকারকে নির্দেশও দিয়েছে আপিল বিভাগ। দুপুরে প্রধান বিচারপতি সৈয়দ মাহমুদ হোসেনের নেতৃত্বে ৬ বিচারপতির আপিল বেঞ্চ এ আদেশ দেন। প্রতিক্রিয়ায় খালেদা জিয়ার আইনজীবীরা বলেছেন, সরকারের রোষানলে জামিন বঞ্চিত হয়েছেন খালেদা জিয়া। অন্যদিকে রাষ্ট্রপক্ষের দাবি, সর্বোচ্চ নির্বাহী পদে থেকে দুর্নীতির কারণেই এই আবেদন বাতিল হয়েছে।

দুর্নীতির দুই মামলায় ১৭ বছরের দণ্ড মাথায় নিয়ে কারাবন্দি সাবেক প্রধানমন্ত্রী খালেদা জিয়া গত এপ্রিল থেকে চিকিৎসাধীন আছেন বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয় হাসপাতালে।

এর আগে, গেল বছর ২৯ অক্টোবর জিয়া চ্যারিটেবল ট্রাস্ট দুর্নীতি মামলায় জড়িত থাকার অপরাধে সাবেক এই প্রধানমন্ত্রীকে ৭ বছরের কারাদণ্ড দেয় বিচারিক আদালত। পরে ওই মামলায় জামিন চাইলে নাকচ করে দেয় হাইকোর্ট। সবশেষে আপিল বিভাগে জামিন চেয়ে আবেদন করেন বিএনপি চেয়ারপার্সনের আইনজীবীরা।

এদিন খালেদা জিয়ার আপিল শুনানিকে ঘিরে সুপ্রিমকোর্টে নেয়া হয় কঠোর নিরাপত্তা ব্যবস্থা। আদালত প্রাঙ্গনে চলে উভয়পক্ষের আইনজীবীদের পাল্টাপাল্টি মিছিল। পরিস্থিতি সামাল দিতে শুনানিতে দু’পক্ষের ৬০ আইনজীবীকে প্রবেশের অনুমোতি দেয় সর্বোচ্চ আদালত। এরই মাঝে উভয়পক্ষের যুক্তিতর্ক শেষে সর্বসম্মতিক্রমে জামিনের বিষয়ে সিদ্ধান্ত জানায় আপিল বিভাগ।

এই মামলায় জামিন নাকচের পক্ষে রাষ্ট্রপক্ষের যুক্তি তুলে ধরেন দুদকের এই আইনজীবী। তবে সর্বোচ্চ আদালতেও রাজনৈতিক হস্তক্ষেপের ইঙ্গিত দেন খালেদা জিয়ার আইনজীবীরা।

পূর্ণাঙ্গ আদেশ হাতে পাওয়ার পর পরবর্তী আইনি ব্যবস্থা খতিয়ে দেখা হবে বলেও জানান বিএনপি চেয়ারপার্সনের আইনজীবীরা।

শেয়ার করুন।

উত্তর দিন