চলতি বছর ১০ থেকে ১৫ লাখ টন চাল রফতানি করবে সরকার

0

সরকার চলতি মৌসুমে ১০ থেকে ১৫ লাখ টন চাল রফতানির সিদ্ধান্ত নিয়েছে বলে জানিয়েছেন কৃষিমন্ত্রী ড. আব্দুর রাজ্জাক। চালের ক্ষেত্রে ২০ শতাংশ থেকে বাড়িয়ে ২৫-৩০ শতাংশ প্রণোদনা দেবে সরকার। রাজস্ব বাজেট বাবদ বরাদ্দকৃত ভর্তুকি খাতের তিন হাজার কোটি টাকা কৃষি যান্ত্রিকীকরণে সরকার সিদ্ধান্ত নিয়েছে। গুদামের ধারণক্ষমতা বৃদ্ধির কার্যক্রম নেয়া হবে বলে জানান তিনি। এর বাইরে নন-ইউরিয়া সারের ওপর আরো প্রণোদনা দেয়ার চিন্তাভাবনা করা হচ্ছে।

এত ধান তবুও কৃষকের মুখে হাসি নেই। ধানের দাম না পাওয়ায় বিভিন্ন স্থানে প্রতিবাদে ধান ক্ষেতে আগুন এবং রাস্তায় ফেলে এর প্রতিবাদ করে কৃষকরা।

তবে কৃষিমন্ত্রী বলেন, এবার কৃষিতে অস্বাভাবিক সাফল্যের কারণ আবহাওয়া জলবায়ু এবং নতুন জাতের ধানের ফলন। কৃষি মন্ত্রী ড. আব্দুর রাজ্জাক সচিবালয়ে সংবাদ সম্মেলনে বলেন, আউশ মৌসুমে ২৮৭ লাখের বিপরীতে ২৯ লাখ, আমন মৌসুমে ১৩ লাখ টন অতিরিক্ত উৎপাদিত হওয়ার কারণে এমন পরিস্থিতির সৃষ্টি হয়েছে।

তিনি বলেন, কৃষকের বড় অংশের ধান কাটার মতো মজুরি দেয়ার সামর্থ্য নেই। তাই আগামিতে কৃষি যান্ত্রিকীকরণের দিকে জোর দেবে সরকার। একই সঙ্গে চাল রফতানি করার সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে।

এর বাইরে আরো কিছু কাজ কৃষকদের জন্য আরো কিছু বিভিন্ন মেয়াদি কার্যক্রম হাতে নিয়েছে সরকার।
ধানের অগ্রিম মূল্য নির্ধারণ করে কৃষক থেকে ধান সংগ্রহ।
চাষীদের তালিকা প্রণয়ণ।
সরকারের গুদামের ধারণক্ষমতা বৃদ্ধি।
ধান সংগ্রহের পরিমাণ ৫০ লাখ মেট্রিক টনে উন্নীত করা।
চাল আমদানি নিরুৎসাহিত করতে ট্যাক্স বাড়ানো।
মন্ত্রী জানান, সেচের কার্যক্ষমতা বৃদ্ধি ব্যয় কমা ও এখাতে সরকার আরো ভর্তুকি দেবে।

শেয়ার করুন।

উত্তর দিন