সংরক্ষিত আসনে সংসদ সদস্য হতে জোর তৎপরতা শুরু করেছেন চট্টগ্রামের অন্তত এক ডজন নারী নেত্রী

0

একাদশ সংসদ নির্বাচনের রেশ না কাটতেই সংরক্ষিত আসনে সংসদ সদস্য হতে জোর তৎপরতা শুরু করেছেন চট্টগ্রামের অন্তত এক ডজন নারী নেত্রী। তারা সবাই আওয়ামী লীগ ও অঙ্গ সংগঠনের নেতা-কর্মী। রয়েছেন সিটি কর্পোরেশনের নারী কাউন্সিলর ও দলের সিনিয়র নেতাদের সন্তানরাও। দায়িত্ব পেলে নারীর ক্ষমতায়নে সক্রিয় থাকার পাশাপাশি চলমান উন্নয়নেরও অংশীদার হতে চান তারা। আর বিশ্লেষকরা বলছেন– রাজনীতিতে সক্রিয়, ত্যাগী ও পরিচ্ছন্ন নেত্রীদের সংরক্ষিত আসনে জায়গা দেয়া উচিত।

সংসদীয় রীতি অনুযায়ী নারীদের জন্য নির্ধারিত ৫০ টি সংরক্ষিত আসনের মধ্যে আনুপাতিক হারে প্রায় ৪৫টিই পাচ্ছে ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগ। তাই দৌড়-ঝাঁপ শুরু করেছেন আওয়ামী লীগের নারী নেত্রীরা। নির্বাচনে বিজয়, মন্ত্রীসভা গঠনের পর এখন সংরক্ষিত আসন নিয়ে আলোচনায় সরগরম বন্দরনগরী চট্টগ্রাম। রাজনৈতিক ও সামাজিক কাজে নিজের অবদান ও ভবিষ্যতের পরিকল্পনা তুলে ধরে আলোচনায় আসতে প্রচার চালাচ্ছেন তারা। (ঢাকা অফিস থেকে সংসদ ভবনের ফুটেজ দিয়ে শুরু হবে)

মন্ত্রীসভায় কম বয়সীদের প্রাধান্য দেয়া হয়েছে। এবার সংরক্ষিত আসনেও চমক থাকবে । প্রধানমন্ত্রীর এমন ঘোষণার পর নড়ে চড়ে বসেছেন সবাই। বিশ্লেষকরা বলছেন, এবারের সরকারের কাছে সাধারণ মানুষের প্রত্যাশা অনেক বেশী। তাই শুধু নারীদের জন্য নয়, সরকারের সামগ্রীক উন্নয়নে ভূমীকা রাখার মতো নেতৃত্বকেই বেছে নিতে হবে সংরক্ষিত আসনের জন্য।

সংরক্ষিত আসনের সাবেক এমপি ওয়াসিকা আয়শা খান ও চেমন আরা তৈয়বও ফের এমপি হওয়ার তালিকায় আছেন। এছাড়া দক্ষিণ জেলা মহিলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক শামীমা হারুণ লুবনা, উত্তর জেলা আওয়ামী লীগের সদস্য খাদিজাতুল আনোয়ার সনি, সুচিন্তা বাংলাদেশের বিভাগীয় সমন্ময়ক এ্যাডভোকেট জিনাত সোহানা চৌধুরী, চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশনের সাবেক কাউন্সিলর রেহেনা বেগম রানুসহ অন্তত এক ডজন নারী আছেন আলোচনায়।

শেয়ার করুন।

উত্তর দিন