রিজার্ভ চুরির ঘটনায় আট কর্মকর্তার গাফিলতি, দায়িত্বে অবহেলা ও অসতর্কতা দায়ী

0

বাংলাদেশ ব্যাংকের রিজার্ভ চুরির ঘটনায় প্রতিষ্ঠানটির আট কর্মকর্তার গাফিলতি, দায়িত্বে অবহেলা ও অসতর্কতাকে দায়ী করেছে বাংলাদেশ ব্যাংকের সাবেক গভর্নর ড. মোহাম্মদ ফরাসউদ্দিনের নেতৃত্বে গঠিত ৩ সদস্যের তদন্ত কমিটি। তবে এই তদন্তের দীর্ঘসূত্রিতা নিয়ে প্রশ্ন তুলেছেন অর্থনীতিবিদরা। পাশাপাশি যুক্তরাষ্ট্রভিত্তিক তদন্ত সংস্থা এফবিআই-এর প্রতিবেদনকে তুলনামূলকভাবে বেশি গ্রহণযোগ্য মনে করছেন তারা। এদিকে, সরকারী গোয়েন্দা সংস্থা– সিআইডি এখনো প্রতিবেদন দাখিল করতে না পারলেও অগ্রগতি হয়েছে বলে দাবি করেছে।

৮ কোটি ১০ লাখ ডলার। টাকার অঙ্কে সাতশ’ কোটিরও বেশি। বাংলাদেশ ব্যাংক থেকে চুরি হওয়া এই অর্থের ব্যাপারে প্রায় দু’বছর পর তদন্ত প্রতিবেদন প্রস্তুত করেছে সরকারি কমিটি। প্রতিবেদনে বাংলাদেশ ব্যাংকের দু’জন যুগ্ম পরিচালক, একজন সহকারী পরিচালক, দুই উপ-পরিচালক, আইটি বিভাগের একজন এবং সচিব বিভাগের দু’জনকে দায়ী করা হয়েছে। রিজার্ভ চুরির ঘটনা ২৪ দিন গোপন রাখাকে সাবেক গভর্নর ড. আতিউর রহমানের গর্হিত অপরাধ হিসেবেও মন্তব্য করে তদন্ত কমিটি।

দায়িত্বে অবহেলার বিষয়টিকে প্রাধান্য দিয়ে আরো আগেই রিজার্ভ চুরির ঘটনা মোকাবেলা করা যেতো বলে মনে করেন অর্থনীতিবিদ ইব্রাহীম খালেদ। তবে সম্প্রতি এফবিআইয়ের প্রতিবেদনকে বেশি গুরুত্ব দিতে চান তিনি।

এদিকে, গোয়েন্দা সংস্থা- সিআইডির বিশেষ পুলিশ সুপার মোল্যা নজরুল ইসলাম জানান, এরই মধ্যে সাতজন বিদেশীকে এই চুরির ঘটনায় সন্দেহভাজন হিসেবে চিহ্নিত করা হয়েছে। তদন্ত প্রতিবেদন গতানুগতিকভাবে না করে সুক্ষ্ণভাবেই প্রস্তুত করা হচ্ছে বলেও জানান তিনি।

উন্নত দেশগুলোতেও হ্যাকিংয়ের ঘটনা বেশি ঘটছে দাবী করে সব হ্যাকিং-প্রতিরোধে রাষ্ট্রায়ত্ব কর্মচারীদের দক্ষতা বৃদ্ধির প্রয়োজনীতা রয়েছে বলে মনে করেন বিশেষজ্ঞরা।

শেয়ার করুন।

উত্তর দিন