রাজশাহীতে তৈরি হচ্ছে বিভাগীয় পর্যায়ের হাইটেক পার্ক

0

রাজশাহীতে তৈরি হচ্ছে বিভাগীয় পর্যায়ের প্রথম হাইটেক পার্ক। এখান থেকেই হবে হার্ডওয়্যার-সফটওয়্যার থেকে শুরু করে তথ্য-প্রযুক্তির বিভিন্ন কাজ। বিশ্বের শীর্ষস্থানীয় তথ্যপ্রযুক্তি সেবা ফেসবুক, গুগল, হোয়াটসঅ্যাপের মতো প্রতিষ্ঠানও তৈরি হবে এখানেই। তৈরি হবে আইটিখাতে বিপুল জনশক্তিও। এই মেগা প্রকল্প বাস্তবায়িত হলে অন্তত ১৪ হাজার মানুষের কর্মসংস্থান হবে বলে আশা করা হচ্ছে। তবে এই পার্কে আধুনিক সব সুযোগ-সুবিধা নিশ্চিত করাই চ্যালেঞ্জ বলে মনে করছেন বিশেষজ্ঞরা।

যুক্তরাষ্ট্রের সিলিকন ভ্যালির আদলে রাজশাহীর বুলনপুরে পদ্মাপাড়ে প্রায় ৩২ একর জায়গায় তৈরি হচ্ছে ‘বঙ্গবন্ধু সিলিকন সিটি’। এরই মধ্যে প্রকল্প এলাকায় সড়কবাতি স্থাপন, ভূমি উন্নয়ন ও অভ্যন্তরীণ সড়ক নির্মাণকাজের ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন করা হয়েছে।

এই সিটিতে তৈরি করা হচ্ছে দশতলার এমটিবি ভবনও। থাকছে ভূমি উন্নয়ন, অভ্যন্তরীণ সড়ক, মানবসম্পদ উন্নয়ন, ইনকিউবেশন সুবিধা। আরো থাকবে ৬২ হাজার বর্গফুট আয়তনের পাঁচতলার আইটি ইনকিউবেটর কাম ট্রেনিং সেন্টার। নদীর পানি কাজে লাগিয়ে পরিবেশবান্ধব এ পার্ক তৈরি কাজ এখন চলছে।

কিন্তু পদ্মাপাড়ের এই মেগা প্রকল্প সফলে সবার আগে নদী শাসন ও পরিবেশবান্ধব সুবিধা নিশ্চিত করাই বড় চ্যালেঞ্জ- বলে মনে করছেন এই আইটি বিশেষজ্ঞ।

তবে এই প্রকল্প বাস্তবায়িত হলে কাজের সুযোগ পাবে উদ্যমী তরুণ-তরুণীরা। ফলে এ অঞ্চলে আইটিখাতে কর্মসংস্থানের বিপ্লব ঘটবে বলে জানান, প্রতিষ্ঠানটির উপদেষ্টা। কিন্তু দুটি শর্ত নিশ্চিত না হলে ওই ফল মিলবে না বলে মনে করেন রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের কম্পিউটার সেন্টারের পরিচালক।

বঙ্গবন্ধু সিলিকন সিটি নির্মাণে খরচ ধরা হয়েছে ২৩ হাজার ৮২৪ কোটি ৭০ লাখ টাকা। প্রকল্পের মেয়াদ ২০১৬সালের জুলাই থেকে ২০১৯ সালের জুন পর্যন্ত।

 

শেয়ার করুন।

উত্তর দিন

eight − 8 =

Test