রাঙামাটিতে মাইক্রোবাসে গুলি চালিয়ে পাঁচজনকে হত্যা

0

পার্বত্য চট্টগ্রাম জনসংহতি সমিতির নেতা- শক্তিমান চাকমাকে হত্যার ২৪ ঘন্টার মাথায়, তার অন্ত্যোষ্টিক্রিয়ায় যোগ দিতে যাওয়ার পথে রাঙামাটিতে মাইক্রোবাসে গুলি চালিয়ে পাঁচজনকে হত্যা করা হয়েছে। বেলা ১২টার দিকে, রাঙামাটি-খাগড়াছড়ি সীমান্তের কাছে বেতছড়ি এলাকায় ওই হামলায় আরো আটজন আহত হয়। রাঙামাটির নানিয়ারচর উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান শক্তিমান চাকমা খুন হওয়ার ২৪ ঘণ্টার ব্যবধানে নতুন করে এই হত্যাকাণ্ডে পাহাড়ে তৈরি হয়েছে উত্তেজনা। সন্ত্রাসীদের ধরতে অভিযানে নেমেছে পুলিশ ও সেনাবাহিনী।

গত বৃহস্পতিবার সন্ত্রাসীদের গুলিতে নিহত নানিয়ারচর উপজেলা চেয়ারম্যান শক্তিমান চাকমার শেষকৃত্যে যোগ দিতে, মাইক্রোবাসে খাগড়াছড়ি থেকে রাঙামাটির নানিয়ারচর যাচ্ছিলেন, গণতান্ত্রিক ইউপিডিএফের আহ্বায়ক তপনজ্যতি চাকমা বর্মাসহ বেশ কয়েকজন। বেলা ১২ টার দিকে, তাদের গাড়িটি বেতছড়িতে পৌঁছালে– আগে থেকেই ওঁৎ পেতে থাকা সন্ত্রাসীরা গুলি ছোঁড়ে। একটি গুলি মাইক্রোবাসের চালকের গায়ে লাগলে– সে নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে ফেলে। এসময় গাড়ীটি উল্টে গেলে– সন্ত্রাসীদের এলোপাথারি গুলিতে সেখানেই
মারা যান বর্মা, যুব সমিতির মহালছড়ি শাখার সভাপতি সুজন চাকমা এবং সদস্য তনয় চাকমা।

আহত ন’জনকে সেনাবাহিনী উদ্ধার করে খাগড়াছড়ি সদর হাসপাতালে ভর্তি করে। সেখানে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা যায়, চালকসহ আরো দু’জন। এ খবর ছড়িয়ে পড়লে– আশপাশের উপজেলায় আতঙ্ক ছড়িয়ে পড়ে। গুলিবিদ্ধ সাতজনের মধ্যে তিনজনকে চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে। এলাকায় আধিপত্য বিস্তার ও চাঁদাবাজিকে কেন্দ্র করে এসব ঘটনা ঘটছে বলে দাবি জেলা পরিষদের। ২৪ ঘন্টার ব্যবধানে রাঙামাটিতে আলোচিত এ দু’টি হত্যাকাণ্ডে পার্বত্য চট্টগ্রাম আবারো অশান্ত হয়ে পড়ার আশংকা স্থানীয়দের।

শেয়ার করুন।

উত্তর দিন