যশোরের শার্শায় আলোচিত ধর্ষণের ঘটনায় তোলপাড় সৃষ্টি হয়েছে

0

যশোরের শার্শায় আলোচিত ধর্ষণের ঘটনায় তোলপাড় সৃষ্টি হয়েছে। ধর্ষণে জড়িত অভিযোগে গোড়পাড়া পুলিশ ফাড়ির ইনচার্জ এসআই খায়রুলকে প্রত্যাহার করা হয়েছে। আটক করা হয়েছে পুলিশের তিন সোর্সকে। রোববার তাদের রিমান্ড শুনানি হবে। পুলিশ সুপার জানিয়েছেন, ধর্ষণের আলামত পরীক্ষার জন্য ঢাকায় পাঠানো হয়েছে। তদন্তে প্রমাণিত হলে, অভিযুক্ত এসআইর বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা নেয়া হবে। এদিকে ধর্ষিতা নারীর স্বাস্থ্য পরীক্ষায় ধর্ষণের আলামত পাওয়া গেছে।

যশোরের শার্শা উপজেলার লক্ষ্মণপুর গ্রামে এক গৃহবধু গেল সোমবার রাতে ধর্ষণ শিকার হন।গোড়পাড়া পুলিশ ফাড়ির ইনচার্জ এস আই খায়রুল ও তার সোর্স কামরুল তাকে ধর্ষণ করেন বলে অভিযোগ উঠেছে। আর ঘটনার সময় লতিফ ও কাদের নামে আরো দুই সোর্স ঘরের বাইরে অবস্থান করে।

মঙ্গলবার ধর্ষণের অভিযোগে কামরুল, লতিফ ও কাদেরের নাম উল্লেখ করে এবং একজনকে অজ্ঞাত দেখিয়ে মামলা হয়। তিনজনকে আটক করে পুলিশ। আর অভিযোগের বিষয়টি জানার পর, পুলিশ প্রশাসন এসআই খায়রুলকে প্রত্যাহার করে। উর্ধ্বতন কর্মকর্তার সামনে অভিযুক্ত খায়রুলকে মুখোমুখী করা হলেও, ভয়ে তার নাম বলতে পারেননি ধর্ষিতা নারী। ধর্ষিতার স্বাস্থ্য পরীক্ষায়, ধর্ষণের আলামত পাওয়ার কথা জানান যশোর জেনারেল হাসাপাতালের আবাসিক চিকিৎসক।

সংগৃহীত আলামত পরীক্ষার জন্য ঢাকায় পাঠানোর তথ্য জানিয়ে, পুলিশ সুপার বলেন, তদন্তে অজ্ঞাত ব্যক্তিটি পুলিশ হলে, তার বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা নেয়া হবে। কয়েকদিন আগে ধর্ষিতার স্বামীকে মাদক মামলায় গ্রেফতার করে পুলিশ। অতীতে মাদকের সাথে যুক্ত থাকলেও এখন সে কৃষি কাজে নিয়োজিত বলে দাবি পরিবারের।

শেয়ার করুন।

উত্তর দিন