মানুষকে হয়রানি এবং টাকা আদায়ের সঙ্গে জড়িতদের খুঁজেতে তদন্ত কমিটি গঠন

0

ভূয়া পরোয়ানা জারি করে সাধারণ মানুষকে হয়রানি এবং টাকা আদায়ের সঙ্গে জড়িতদের খুঁজে পেতে উচ্চ পর্যায়ের তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়েছে বলে হাইকোর্টকে জানিয়েছে সিআইডি। এ সম্পর্কিত রুলের শুনানিতে সিআইডির পক্ষে তাদের আইনজীবী এ তথ্য আদালতকে জানান। আগামী ১৬ ফেব্রুয়ারির মধ্যে তদন্ত প্রতিবেদন দাখিলের নির্দেশ দেয় বিচারপতি এম ইনায়েতুর রহিম এবং বিচারপতি মোস্তাফিজুর রহমানের সমন্বয়ে গঠিত দ্বৈত বেঞ্চ।

লাল স্যুয়েটার পড়া মধ্যবয়স্ক এই ব্যক্তির নাম আওলাদ হোসেন। বেসরকারি সংস্থা গণস্বাস্থ্য কেন্দ্রের প্রোগ্রাম অফিসার। গত বছর ৩০ অক্টোবর আশুলিয়া থেকে নারী ও শিশু নির্যাতনের মামলায় গ্রেফতার হন তিনি। এরপর ৬৮ দিন, দেশের ৮টি জেলে দুর্বিষহ জীবন কাটান।

একের পর এক গ্রেপ্তারি পরোয়ানা দেখিয়ে এক কারাগার থেকে আরেক কারাগারে হাজির করা হয়। এমন অভিযোগ তুলে আওলাদের স্ত্রী হাইকোর্টে রিট করলে, রুল জারি করা হয়। নথিপত্র যাচাইয়ে দেখা যায় ভুয়া পরোয়ানায় গ্রেফতার হন তিনি। কাদের কারনে আওলাদের এই ভোগান্তি– তা খুঁজে বের করতে সিআইডিকে নির্দেশ দেয় হাইকোর্ট।

মঙ্গলবার রুলের শুনানিতে হাইকোর্টকে সিআইডি জানায়—ঘটনা তদন্তে গঠন করা হয়েছে উচ্চ ক্ষমতাসম্পন্ন কমিটি।

নিজের দুর্ভোগের কথা গণমাধ্যমে তুলে ধরেন আওলাদ হোসেন।

এই রুল নিষ্পত্তির মধ্য দিয়ে ভূয়া ওয়ারেন্ট চক্রের বিরুদ্ধে উচ্চ আদালত কঠোর সতর্কবার্তা জারি করবে বলেও প্রত্যাশা ভুক্তভোগীদের।

শেয়ার করুন।

উত্তর দিন