বিশ্বকাপ শুরু হতে বাকি এক মাসেরও কম সময়

0

বিশ্বকাপ শুরু হতে বাকি এক মাসেরও কম সময়। এরই মধ্যে এই গ্রেটেস্ট শো অন আর্থকে ঘিরে বানিজ্যকরণের লক্ষ্যে বিভিন্ন প্রতিষ্ঠান নিয়েছে নানান উদ্যোগ। রাশিয়া বিশ্বকাপের দর্শকদের জন্য মেক্সিকান প্রতিষ্ঠান “গ্রুপো রেভ” তৈরী করছে সুপারষ্টার ফুটবলারদের রাবার মাস্ক। দর্শকরা প্রতিদিনই অর্ডার করছেন প্রিয় তারকার মুখোশ। একটি মাস্কের জন্য বিক্রয় মূল্য ধরা হয়েছে ২৫০ পেসো বা ১৩ মার্কিন ডলার।

টেবিলের ওপরে সারি সারি সাজানো। দক্ষ হাতে যত্ন করে সেই সাজিয়ে রাখা বস্তুটিকে আকার দেওয়ার চেষ্টা চলছে। মুখোশ তবে মেসি, রোনাল্ডো, নেইমারদের। ২০১৮ বিশ্বকাপের বাকি অল্প কিছুদিন। এরই মধ্য এই গ্রেটেস্ট শো অন আর্থকে ঘিরে বানিজ্যকরণের লক্ষ্যে বিভিন্ন প্রতিষ্ঠান নিয়েছে নানান উদ্যোগ।

বিশ্বকাপের প্রস্তুতি। এগিয়ে আসছে দিন। ফলে ফুটবলপ্রেমীদের মধ্যে চাহিদা বাড়ছে প্রিয় ফুটবলারের মুখোশ সংগ্রহে রাখার। আর সেই দায়িত্ব পেয়ে সেরে ফেলছিন নিজেদের কাজটি। মেক্সিকোর জিউটিপেক শহরে ‘গ্রুপো রেভ ফ্যাক্টরি’। শুধু মেসি, রোনাল্ডোরা নন, নতুন–পুরনো মিলিয়ে মোট ১২ জন জনপ্রিয় ফুটবলারের মুখোশ তৈরি হচ্ছে এই কারখানায়। পেলে, মারাদোনা, জিদান যেমন আছেন তালিকায়, তেমনই আছেন ইব্রাহিমোভিচ, লুই সুয়ারেজ এবং ফ্রাঙ্ক রিবেরিরা।

বিশ্বকাপ দেখতে রাশিয়া যাবেন, তাই আগে থেকে প্রিয় তারকার মুখোশ সংগ্রহ করতে চাইছেন অনেক অনুরাগী। অন্যদিকে, মেক্সিকোর সমর্থকরা বরাবরই গ্যালারিতে রঙ ছড়াতে ভালবাসেন। সবার কথা ভেবেই আমরা এই মুখোশ তৈরি করছি। আমরা প্রায় ১২ জন সুপারস্টারকে টার্গেট করে আমাদের কর্ম-পরিকল্পনা সাজিয়েছি।

অর্ডার আসছে প্রায় প্রতিদিন। প্রাথমিকভাবে মেসি ও রোনাল্ডোর ১ হাজারটা করে মুখোশ তৈরি করা হয়েছিল। যা ইতিমধ্যেই সবই বিক্রি হয়ে গেছে। অন্য ফুটবলারদের ২০০ থেকে ২৫০ করে মুখোশ তৈরি হচ্ছে। এই মুখোশগুলো তৈরির সময় প্রথমে মাটির একটা ছাঁচ তৈরি করা হচ্ছে। তারপর প্লাস্টার অফ প্যারিসে। শেষে রবারের মুখোশ তৈরি হচ্ছে মেশিনে। মেক্সিকোর বাজারের কথা ভেবেই তৈরি করা হচ্ছে এই মুখোশ। তবে স্পেন, ফ্রান্স, সুইডেন, আমেরিকা থেকেও মুখোশের অর্ডার পেয়েছে ‘গ্রুপো রেভ ফ্যাক্টরি’।

বিক্রি অনেক ভালো হচ্ছে। ফুটবল প্রেমিদের এতো চাহিদা একসাথে পূরণ করতে হিমসিম খেতে হচ্ছে। মেসি আর রোনালদোই আমার কাছেও প্রিয়। এদের পাশাপাশি মেক্সিকোর সুপারস্টার জাভিয়ার ও হারন্দাসের মুখোশও অর্ডার হচ্ছে প্রচুর। আর্থিক ভাবে সফল হলেও ভক্তদের সবার আশা পূরন করতে পারব কিনা জানি না। তবে, আমি সেরাটা দিয়েই চেষ্টা করে যাচ্ছি।

বিশ্বকাপ ফুটবল চলবে ১৪ জুন থেকে ১৫ জুলাই পর্যন্ত। এই সময়টার মধ্যেই পুরো বিশ্ব মাতবে ফুটবল উন্মাদনায়। তবে, এ উন্মাদনায় যুক্ত হবে নানা উপকরণ। বানিজ্যিক ভাবে সে সব উপকরনের মধ্য মুখোশ অন্যতম।

শেয়ার করুন।