বাহাদুরপুর দূর্গাপুর গ্রামে গড়ে উঠেছে অতিথি পাখির অভয়আশ্রম

0

বেনাপোল থেকে ১০ কিলোমিটার উত্তরে বাহাদুরপুর দূর্গাপুর গ্রামে গড়ে উঠেছে অতিথি পাখির অভয়আশ্রম। জয়পুরহাটে গাড়িয়াকান্ত গ্রাম এখন অতিথি পাখির অভয়ারন্য। আর মৌলভীবাজারের মাছ ও পাখির অভয়াশ্রম বাইক্কা বিলে ভিড় করেছে হাজার হাজার অতিথি পাখির।

ভারতের কাটা তারের বেড়ার পাশেই সবুজ বেষ্টনিতে ঘেরা যশোরের শার্শা উপজেলার দুর্গাপুর। এখানে ৬৫ বিঘার বিশাল জলাশয় কদমবিলে গড়ে উঠেছে হরেক রকম পাখির অভয়ারন্য। সরাইল,পানকৌরি পাখির কলতানে মুগ্ধ পাখি প্রেমীরা। সেইসাথে প্রতিবছর শীতে অতিথি পাখিও ঝাকে ঝাকে আসে এ অভয়আশ্রমে। এসব অতিথি পাখি পাহারা দেয় গ্রামবাসীরা।

পাখি শিকারীরা ফাঁদ ও বন্দুক দিয়ে অতিথি পাখি শিকারের চেষ্টা করছে। তাই পরিবেশে বিরূপ প্রভাব পড়ার আশংকা করছেন উপজেলা প্রানী সম্পদ কর্মকর্তারা। এদিকে, জয়পুরহাটে গাড়িয়াকান্ত গ্রাম অতিথি পাখির অভয়ারন্যে পরিণত হয়েছে। সূর্যের আলো ফোটার সাথে সাথে নীড় থেকে বের হওয়া এবং অস্ত যাওয়ার আগ মুহুর্ত থেকে পাখির ঘরে ফেরার দৃশ্য দেখে মুগ্ধ এসব পাখিদের দেখতে আসা দর্শণার্থীরা। উপজেলা প্রাণিসম্পদ কর্মকর্তা জানালেন, দেশীয় পাখি রক্ষায় সবাইকে এগিয়ে আসতে হবে।

লালচে বক, সাইবেরিয়ান বকসহ এ বার ৫৩ প্রজাতির অতিথি পাখির আগমন ঘটেছে মৌলভীবাজারের শ্রীমঙ্গলের বাইক্কা বিলে। পাখির কলকাকলিতে মুখরিত নির্জন বিলের প্রান্তর। বিভিন্ন প্রজাতির পাখি দর্শনার্থীদের আকর্ষণ করছে। পাখি, মাছ ও জলজ উদ্ভিদ রক্ষায় ২০০৩ সালে ভূমি মন্ত্রণালয় প্রায় আড়াইশ একর আয়তনের বাইক্কা বিলকে অভয়াশ্রম ঘোষণা করা হয়। প্রাকৃতিক ভারসাম্য রক্ষায় দেশীয় পাখি সংরক্ষণে সংশ্লিষ্টরা আরো কার্যকরী পদক্ষেপ নেবেন এমনটাই আশা করেন পাখীপ্রেমিরা।

শেয়ার করুন।

উত্তর দিন