বন্দরের নিরাপত্তা বাড়াতে মার্কিন প্রতিনিধি দলের পাঁচ দফা সুপারিশের এখনো কোনটিই বাস্তবায়ন হয়নি

0

চট্টগ্রাম বন্দরের নিরাপত্তা বাড়াতে মার্কিন প্রতিনিধি দলের পাঁচ দফা সুপারিশের এখনো কোনটিই বাস্তবায়ন হয়নি। নভেম্বরে ফের ওই দলটির অগ্রগতি পর্যবেক্ষণে অসার কথা থাকলেও, তাতে আপত্তি জানিয়ে সফর পিছিয়ে দিতে অনুরোধ করেছে বন্দর কর্তৃপক্ষ। আর বন্দর ব্যবহারকারীরা বলছেন, আন্তর্জাতিক মান অর্জন করতে হলে, এসব সুপারিশ শতভাগ বাস্তবায়নের বিকল্প নেই। এতে হোচট খেলে ধ্বস নামবে রফতানি বাণিজ্যে।

চট্টগ্রাম বন্দরের নিরাপত্তা ব্যবস্থায় অসন্তোষ জানিয়ে, ২০১৭ সালে প্রথমবারের মতো ১৬ দফা সুপারিশ করে মার্কিন কোস্ট গার্ডের একটি হাই প্রফাইল প্রতিনিধি দল। গেল আগষ্ট মাসে তার অগ্রগতি দেখতে এসে ফের ৫ দফার সুপারিশ করে তা বাস্তবায়নে নভেম্বর পর্যন্ত সময় বেধে দেয় দলটি।

বেধে দেয়া সময়সীমা এগিয়ে এলেও, এখনো সুপারিশগুলো বাস্তবায়ন হয়নি। যদিও বন্দর কর্তৃপক্ষ বলছে, চলমাল এই প্রক্রিয়াটি বাস্তবায়নে সচেষ্ট তারা। চট্টগ্রাম চেম্বার বলছে, আমলাতান্ত্রিক জটিলতার কারণেই তিন বছর ধরে ঝুলে আছে মার্কিন প্রতিনিধি দলের সুপারিশগুলো। এছাড়া নিজস্ব নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে হলে, সুপারিশগুলো বাস্তবায়ন করা জরুরী।

বিজিএমইএ বলছে, আন্তর্জাতিক বন্দরের মর্যাদা রক্ষায় নিরাপত্তার বিষয়গুলো নিশ্চিত করার বিকল্প নেই। এর আগে জাতিসংঘের অঙ্গসংস্থা আইএমও’র পক্ষ থেকে চট্টগ্রাম বন্দরের নিরাপত্তা ব্যবস্থার বেশকিছু দুর্বলতা তুলে ধরে প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ নেয়ার সুপারিশ করা হয়েছিলো। এরপর বন্দরে যানবাহন ও ব্যক্তি প্রবেশে কড়াকড়িসহ বেশ কিছু পদক্ষেপ নেয় বন্দর কর্তৃপক্ষ।

শেয়ার করুন।

উত্তর দিন