নুসরাতের ভিডিও ছড়িয়ে দেয়ার অভিযোগে ওসির বিরুদ্ধে ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে মামলা

0

নুসরাতের ভিডিও সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ছড়িয়ে দেয়ার অভিযোগে ফেনীর সোনাগাজী থানার তৎকালীন ওসি মোয়াজ্জেম হোসেনের বিরুদ্ধে ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে মামলা হয়েছে। সাইবার অপরাধ ট্রাইবুনালে সুপ্রিম কোর্টের এক আইনজীবীর দায়ের করা মামলাটি তদন্তের জন্য পিবিআইকে নির্দেশ দেয়া হয়েছে। এদিকে, নুসরাত হত্যাকান্ডে সরাসরি জড়িত থাকার কথা স্বীকার করে আদালতে জবানবন্দি দিয়েছে দুই আসামি। আর কাউন্সিলর মাকসুদ আলমের পাঁচ দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেছে আদালত।

সোনাগাজী ইসলামিয়া ফাজিল মাদ্রাসার অধ্যক্ষ সিরাজ-উদ্দৌলার বিরুদ্ধে হয়রানির অভিযোগ করতে থানায় গেলে সেই অভিযোগের ভিডিও ধারণ করেন সোনাগাজী থানার ওসি। এরপর ওই ভিডিও সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ছড়িয়ে দিলে তা ভাইরাল হয়। থানার ওসির রুমে একজন ভিকটিমকে এভাবে জেরা ও ভিডিও ধারণ করে সম্প্রচার করা ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে অপরাধ উল্লেখ করে সাইবার ট্রাইবুনালে মামলা করেন এক আইনজীবী। অভিযোগ আমলে নিয়ে পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশন-পিবিআই’কে তদন্ত করে ব্যবস্থা নেয়ার নির্দেশ দিয়েছে আদালত।

এদিকে, নুসরাত হত্যায় সরাসরি জড়িত থাকার কথা স্বীকার করে আদালতে জবানবন্দি দিয়েছে দুই আসামি। রোববার মধ্যরাতে ফেনীর সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট জাকির হোসাইনের আদালতে ১৬৪ ধারায় এজাহারভুক্ত দুই আসামি নুরউদ্দিন ও শাহাদাত হোসেন শামীম জবানবন্দি দিয়েছে বলে জানিয়েছেন, পিবিআই কর্মকর্তারা।

এছাড়া, নুসরাতকে পুড়িয়ে হত্যা মামলার চার নম্বর আসামি কাউন্সিলর মাকসুদ আলমকে পাঁচ দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেছে আদালত। এদিকে, এ ঘটনায় জড়িত উম্মে সুলতানা পপি ওরফে শম্পাকে গ্রেফতার দেখানোর পাশাপাশি জিজ্ঞাসাবাদের জন্য রিমান্ডে নেয়া হয়েছে বলে জানিয়েছেন, পিবিআই কর্মকর্তারা। ক’দিন আগেই তাকে আটক করা হলেও সোমবার তাকে গ্রেফতার দেখানো হয়। তারা জানান, এই পপি ওরফে শম্পাই আগুন লাগানোর জন্য বোরকা এনে দিয়েছিল।

শেয়ার করুন।

উত্তর দিন