দেখলে মনে হবে যেন কোনো ক্ষেতে খুড়ে রাখা গর্ত

0

দেখলে মনে হবে যেন কোনো ক্ষেতে খুড়ে রাখা গর্ত। ঢেউ খেলা নৌকার মতো চলাচল করে সব ধরণের যানবাহন। চলন্ত অবস্থায় গাড়ি উল্টে যাওয়া কিংবা গাড়ির চাকা খুলে যাওয়ার ঘটনা মামুলি বিষয়। বলছিলাম দেশের গুরুত্বপূণ পর্যটন এলাকা সিলেটের জাফলং মহাসড়কের কথা। বছরের পর বছর হয়নি কোনো সংস্কার কাজ। আশ্বাস আর স্বপ্ন শোনতে-শোনতে এখন আর ভূক্তভোগিরা সরকারের কাছে দাবিও জানাতে চান না।

সিলেট জাফলং মহাসড়কটি সংস্কার কাজ হয়েছিল সবশেষ ২০০১ সালে। দেশ সেরা আঞ্চলিক সড়কের প্রশংসাও করেছিলেন সবাই। কিন্তু প্রায় ১৬ বছর বয়সের এই সড়ককে আর মহাসড়ক বলা যায় কি-না সেই প্রশ্ন চলাচলকারীদের। বিশেষ করে জৈন্তাপুর থেকে জাফলং এই ১৩ কিলোমিটার সড়ক এখন পরিণত হয়েছে মৃত্যুকুপে।

প্রকৃতি কন্যা জাফলংয়ের রূপ মাধুর্য্য দেখতে আসা পযর্টকবাহি পরিবহন শ্রমিকদেরও পড়তে হয় বিড়ম্বনায়। রাস্তার বড়-বড় গর্তে পড়ে গাড়ি নষ্ট হয়ে যাওয়া সাধারণ নিয়মে পরিণত হয়েছে। জাফলংয়ে আসা পর্যটকদের পুজি করে বল্লাঘাট, মামারদোকা ও জাফলংয়ের ব্যবসা বাণিজ্যেও এই সড়কের দূরবস্থার কারণে এসেছে স্থবিরতা।

এক যুগেরও বেশি সময় ধরে সড়কের উন্নয়ন না হওয়ায় ক্ষুব্ধ স্থানীয়রা। আর এ দায় স্বীকার করে রাস্তার দূরবস্থা নিয়ে বিব্রত সংসদ সদস্যও। তিনি জানান, সড়কটির উন্নয়নে ২০০ কোটি টাকার প্রস্তাব এখন একনেকে আছে। জাফলংয়ের পর্যটন শিল্পের বিকাশে অবিলম্বে সিলেট জাফলং মহাসড়কটির সংস্কার প্রকল্পের দ্রুত বাস্তবায়ন চান এলাকাবাসি।

শেয়ার করুন।

উত্তর দিন