দুই হাজার ২শ’ ৫০টি চালকল বন্ধ হয়ে যাওয়ায় বেকার হয়ে পড়েছেন ২৫ হাজার শ্রমিক

0

দিনাজপুরের ১৩টি উপজেলায় দুই হাজার ২শ’ ৫০টি চালকল বন্ধ হয়ে যাওয়ায় বেকার হয়ে পড়েছেন ২৫ হাজার শ্রমিক। উৎপাদন ব্যয় বৃদ্ধির সাথে আশংকাজনক হারে ধান-চাল ব্যবসায়ীর সংখ্যা কমায় ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে কৃষক। আর্থিক ও জাতীয় স্বার্থ বিবেচনায় এসব চালকল চালুর ব্যবস্থা করে বাজারে ক্রেতা বাড়িয়ে ধানের ন্যায্যদাম নিশ্চিত করার দাবি জানিয়েছে কৃষকরা।

দেশের খাদ্য ভান্ডার হিসেবে খ্যাত দিনাজপুরে কৃষিভিত্তিক অর্থনীতির মূল চালিকা শক্তি হচ্ছে ধান। জেলায় ছোট বড় মিলিয়ে চালকলের সংখ্যা ২ হাজার ৩শ’টি। এর মধ্যে অটো-রাইসমিল রয়েছে ১৮৫ টি, বন্ধ হয়ে গেছে ৬৫টি। দেউলিয়া ঘোষণা করায় বিক্রির অপেক্ষায় রয়েছে ১৬টি। বর্তমানে জেলার ২ হাজার ২৫০টি চালকল সম্পূর্ণ বন্ধ হওয়ায় বেকার হয়ে পড়েছে ২৫ হাজার চাতাল শ্রমিক।

বাজারে ধান-চাল ব্যবসায়ীর সংখ্যা কমায় ন্যায্যমূল্য থেকে বার বার বঞ্চিত হচ্ছে কৃষক। বন্ধ চালকলগুলো চালু ও বাজারে ব্যবসায়ীর সংখ্যা বাড়ানোর দাবি তাদের। বিষয়টি বাণিজ্য মন্ত্রণালয়সহ বিভিন্ন দপ্তরে জানানো হয়েছে, জানালেন মালিক সমিতির সভাপতি। এদিকে, বন্ধ চালকলগুলো চালুর দাবি জানিয়েছেন বাংলাদেশ অর্থনীতি সমিতির এই নেতা। বন্ধ চালকল পুনরায় উৎপাদনে আনতে না পারলে, আসন্ন আমন মৌসুমে কৃষকরা আবারও ন্যায্যমূল্য থেকে বঞ্চিত হবে, এমন শংকাও তিনি প্রকাশ করেছেন।

শেয়ার করুন।

উত্তর দিন